বান্দরবানে ‘মগ পার্টির’ হানা, পুড়ল ৭ বাড়ি

0
218
বান্দরবান

বান্দরবানের শহরতলির কাট্টলি নোয়াপাড়ায় সশস্ত্র দুর্বৃত্তরা সাতটি বাড়ি জ্বালিয়ে দিয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। গতকাল বৃহস্পতিবার রাতে এ ঘটনা ঘটে। ভুক্তভোগীদের অভিযোগ, কথিত মগ পার্টির সশস্ত্র দুর্বৃত্তরা এ ঘটনা ঘটিয়েছে। বাড়িগুলো চাকমা জাতিগোষ্ঠীর মানুষদের। সদর থানার পুলিশও এ ঘটনা জানে।

এ ঘটনার পর পরিবারগুলো আজ শুক্রবার ভোরে পার্শ্ববর্তী পাড়ায় আশ্রয় নিয়েছে। বেলা ১২টায় এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত নিরলা চাকমা (৪০) নামের এক নারীকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না বলে কাট্টলি নোয়াপাড়ার কারবারি (পাড়াপ্রধান) ধারাসমনি চাকমা জানিয়েছেন।

এলাকাবাসী জানিয়েছেন, রাত সাড়ে নয়টার দিকে মগ পার্টির একটি দল কাট্টলি নোয়াপাড়ার দিকে আসতে থাকে। পাড়ার ঢোকার সময় মগ পার্টি গুলি ছোড়ে। গুলির শব্দে আতঙ্কিত পাড়াবাসী যে যেদিকে পারে জঙ্গলে পালিয়ে যায়। কাট্টলি নোয়াপাড়া বান্দরবান জেলা শহর থেকে সাত কিলোমিটার দূরে কুহালং ইউনিয়নের ৬ নম্বর ওয়ার্ডে। সেখানে পুরোনো কাট্টলিপাড়ায় মারমা ও কাট্টলি নোয়াপাড়ায় অভ্যন্তরীণ উদ্বাস্তু সাত চাকমা পরিবার বসবাস করে।

ঘটনার শিকার পাড়াবাসী জানিয়েছেন, তাঁরা জঙ্গলে পালিয়ে প্রাণ রক্ষা করেছেন। সারা রাত জঙ্গলে থাকার পর ভোরে পার্শ্ববর্তী খোলা কোলাক্ষ্যংপাড়ায় আশ্রয় নিতে এসেছেন।

পাড়ার কারবারি ধারাসমনি চাকমা বলেন, তাঁরা সর্বস্বহারা হয়ে শুধু পরনের কাপড় নিয়ে কোলাক্ষ্যংপাড়ায় আশ্রয় নিয়েছেন।

কুহালং ইউনিয়নের জনপ্রতিনিধিরা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেছেন, মগ পার্টির সশস্ত্র সদস্যরা এ ঘটনা ঘটিয়েছে। স্থানীয় কিছু যুবককে নিয়ে মগ পার্টি নামে বান্দরবান সদর উপজেলার কুহালং, রাজবিলা, রাঙামাটির রাজস্থলী উপজেলায় হত্যা, চাঁদাবাজি ও সন্ত্রাসী কার্যক্রম চালাচ্ছে। মগ পার্টি নামধারীরা মূলত আরাকান লিবারেশন পার্টির (এএলপি) দলছুট সশস্ত্র সদস্য।

গত সোমবার বান্দরবান সদর উপজেলার রাজবিলা ইউনিয়নের বালুমড়া নোয়াপাড়া থেকে পাড়ার কারবারি ও তার ছেলেসহ তিনজনকে নির্যাতনের পর গুলি করে হত্যা করা হয়। ওই ঘটনা কথিত মগ পার্টির সদস্যরাই ঘটিয়েছে বলে স্থানীয় লোকজনের অভিযোগ।

কুহালং ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান সানুপ্রু মারমা বলেছেন, কাট্টলি নোয়াপাড়া কারবারিসহ পাড়াবাসী তাঁর কাছে এসেছেন। বিষয়টি আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে জানানো হয়েছে।

বান্দরবান সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শহীদুল ইসলাম চৌধুরী বলেন, কাট্টলি নোয়াপাড়ায় কয়েকটি বাড়ি জ্বালিয়ে দেওয়ার সংবাদ আমরা সকালে জেনেছি। সেখানে পুলিশের একটি দল যাচ্ছে। দলটি ফিরলে বিস্তারিত জানা যাবে।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে