জাতীয় সংসদ ভবন আরও আধুনিকায়ন হচ্ছে

0
149
ছবি: ফাইল

জাতীয় সংসদ ভবনের আরও আধুনিকায়ন হচ্ছে। এ পরিকল্পনার আওতায় ১ থেকে ৬ নম্বর পর্যন্ত সংসদ সদস্য ভবনের আধুনিকায়ন হবে। সৌন্দর্যময় পরিবেশ ও নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে সংসদ ভবনের পশ্চিম পাশের আবাসিক এলাকা ও আরবরিকালচার কম্পাউন্ড এবং খেজুরবাগান এলাকায় ভবন সংলগ্ন সীমানা প্রাচীর নির্মাণ করা হবে। এমপি হোস্টেল ক্যাম্পাসও দৃষ্টিনন্দন করে তোলা হবে। বিজয়ের মাসেই এসব কাজ শুরু করা হবে।

এ লক্ষ্যে ‘জাতীয় সংসদ ভবন, সংসদ সদস্য ভবন ও এমপি হোস্টেলসহ আনুষঙ্গিক স্থাপনার নির্মাণ ও আধুনিকায়ন’ নামে একটি প্রকল্প হাতে নিয়েছে সরকার। গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের নেওয়া প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করবে গণপূর্ত অধিদপ্তর। ২৩৪ কোটি টাকা ব্যয়ের প্রকল্পটি জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) সভায় অনুমোদনের জন্য সুপারিশ করেছে পরিকল্পনা কমিশন। রাজধানীর শেরেবাংলা নগরে এনইসি সম্মেলন কেন্দ্রে আজ মঙ্গলবার অনুষ্ঠেয় এ বৈঠকে সভাপতিত্ব করবেন প্রধানমন্ত্রী, একনেকের চেয়ারপারসন শেখ হাসিনা।

পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের হাস্যকর যুক্তি :চলতি অর্থবছরের বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচিতে (এডিপি) এ প্রকল্প অন্তর্ভুক্ত ছিল না। বরাদ্দহীন অনুমোদিত প্রকল্পের তালিকায়ও এটি নেই। তবে অনেকটা হাস্যকর যুক্তি দেখিয়ে এডিপি-বহির্ভূত প্রকল্প হিসেবে এটিকে প্রক্রিয়াভুক্ত করার সুপারিশ করেছে পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়। মন্ত্রণালয়ের যুক্তি, প্রকল্পটি বাস্তবায়নে অনেক শ্রমিক সাময়িকভাবে নিয়োগ করা হবে। এতে কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি হবে এবং অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড বাড়বে- যা দারিদ্র্য বিমোচনে সহায়ক হবে। পরিকল্পনা কমিশনের সুপারিশে আরও বলা হয়, এ প্রকল্প বাস্তবায়নের মাধ্যমে জাতীয় সংসদে আধুনিক এবং উন্নত কর্মপরিবেশ সৃষ্টি হবে- যা সপ্তম পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনার কিছু লক্ষ্য, বিশেষত আইনের শাসনের সঙ্গে সরাসরি যুক্ত। জাতীয় সংসদ ভবন, জাতীয় সংসদ সদস্য ভবন ও এমপি হোস্টেলে আধুনিকায়নের ফলে জাতীয় সংসদের কার্যক্রমেও গতিশীলতা বাড়বে।

প্রকল্পে যা হবে: প্রকল্পটির প্রধান কাজের মধ্যে রয়েছে সংসদ সদস্য ভবন নম্বর ১, ২, ৩, ৪, ৫ ও ৬-এর আধুনিকায়ন। এসব ভবনের টাইলস পাল্টানো হবে। ক্যাবিনেট ও অভ্যন্তরীণ সাজসজ্জা উন্নত করা হবে। ২, ৩, ৪, ৫ এবং ৬ নম্বর ভবনের ভেতর আধুনিকীকরণের পাশাপাশি বৈদ্যুতিক কাজও হবে। ১, ২, ৩, ৪, ৫ ও ৬ নম্বর ভবনের বাইরের অংশে উন্নয়ন ঘটবে। গণপূর্ত কর্মচারী ও জাতীয় সংসদ ভবনের নিরাপত্তারক্ষীদের জন্য মণিপুরিপাড়ায় খেজুরবাগান সংলগ্ন এলাকায় ৯ তলা বিশিষ্ট দুটি ভবন নির্মাণ করা হবে। এমপি হোস্টেলের পার্লামেন্ট মেম্বার ক্লাব এবং কমিউনিটি সেন্টারের আধুনিকায়ন ও সংসদ ভবনের বৈদ্যুতিক কাজের আধুনিকায়ন হবে।

প্রসঙ্গত, বাংলাদেশের জাতীয় সংসদ ভবনকে বিশ্বের নান্দনিক স্থাপত্য শৈলির অনন্য নির্দশন মনে করা হয়। যুক্তরাষ্ট্রের বিখ্যাত স্থপতি লুই কান এটির নকশা করেন। আগা খান স্থাপত্য পুরস্কারে ভূষিত হওয়ার সময় এর সম্মাননাপত্রে বলা হয়, অসাধারণ স্থাপত্যিক গুরুত্বসহ অবয়ব ও সৌন্দর্যের মাপকাঠিতে উত্তীর্ণ ভবনটি জুরি বোর্ডে প্রশ্নবিদ্ধ হয়েছে এই বলে যে, গরিব দেশটির জন্য এত সুন্দর ভবনের প্রয়োজন কতটুকু।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে