আইপিএলের মৌসুম সেরা একাদশে যারা

0
151
আইপিএলের ২০২৩ আসরের চ্যাম্পিয়ন চেন্নাই সুপার কিংস।

গুজরাট টাইটান্সকে হারিয়ে আইপিএলের পঞ্চম শিরোপা ঘরে তুলেছে চেন্নাই সুপার কিংস। বুধবার আসরের মৌসুম সেরা একাদশ নির্বাচন করেছে ক্রিকেট ভিত্তিক সংবাদ মাধ্যম ক্রিকইনফো। ওই একাদশে রানার্স আপ দল গুজরাটের চারজন ক্রিকেটার জায়গা পেলেও চ্যাম্পিয়ন চেন্নাইয়ের আছেন মাত্র একজন।

শুভমন গিল (গুজরাট ওপেনার): আইপিএলের মৌসুম সেরা একাদশে ২৪ বছর বয়সী ভারতীয় ওপেনার শুভমন গিলকে রাখতেই হবে।  তিন সেঞ্চুরিতে আসরের সর্বোচ্চ ৮৯০ রান করেছেন তিনি।

ফ্যাফ ডু প্লেসি (ব্যাঙ্গালুরু ওপেনার): ব্যাট হাতে দুর্দান্ত খেলেছেন ব্যাঙ্গালুরু ওপেনার ফ্যাফ ডু প্লেসি। ১৪ ইনিংসের মধ্যে আটটিতে ফিফটি প্লাস ইনিংস খেলেছেন তিনি। কোন ম্যাচেই ২০ রানের নিচে করেননি। ১৪ ম্যাচে ৭৩০ রান করেছেন এই প্রোটিয়া।

ক্যামেরুন গ্রিন (মুম্বাই পেস অলরাউন্ডার): মেগা আইপিএল নিলামে হট কেক ছিলেন অজি পেস অলরাউন্ডার ক্যামেরুন গ্রিন। মুম্বাই ইন্ডিয়ান্সের হয়ে ভালোও খেলেছেন তিনি। টপ অর্ডারে ব্যাটিং করে ১০ ম্যাচে ৪১৯ রান করেছেন। উইকেট নিয়েছেন ছয়টি। শেষ দিকে তার ব্যাটে ভর করেই শেষ চারে জায়গা করে নিয়েছে ইন্ডিয়ান্স।

সূর্যকুমার যাদব (মুম্বাই ব্যাটার): জাতীয় দলে বাজে সময়ের মতো আইপিএলের শুরুও বাজে হয়েছিল সূর্যকুমারের। এরপর ৩৬০ ডিগ্রী খ্যাত এই ব্যাটার ঝলক দেখাতে শুরু করেন। ১৬ ম্যাচে ১৮১ স্ট্রাইক রেটে তিনি ৬০৫ রান করেছেন।

তিলক ভার্মা (মুম্বাই ব্যাটার): মিডল অর্ডারে নিয়মিত ভালো ব্যাটিং করেছেন তিলক ভার্মা। শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত কার্যকরি ব্যাটিং করেছেন তিনি। ৪৬ বলে ৮৪ রানের ইনিংস দিয়ে আসর শুরু করেন তিনি। ১৪ বলে ৪৩ রান করে আসর শেষ করেন। ১১ ইনিংসে ৩৪৩ রান আসে তার ব্যাট থেকে। স্ট্রাইক রেট ১৬৪.১১।

হেনরিক ক্লাসেন (হায়দরাবাদ উইকেটরক্ষক): সানরাইজার্স হায়দরাবাদ দলটির সেরা ছন্দে থাকা ব্যাটারকে যথাযথ ব্যবহার করতে পেরেছেন কিনা প্রশ্ন আছে। জাতীয় দলে টপ অর্ডারে ব্যাটিং করলেও হেনরিক ক্লাসেনকে পাঁচে খেলিয়েছে দলটি। হায়দরাবাদের হয়ে তিনি ১১ ম্যাচে ১৭৭ স্ট্রাইক রেটে ৪৪৮ রান করেছেন।

রিংকু সিং (কলকাতা ব্যাটার): পাঁচ বলে টানা পাঁচ ছক্কা মেরে কেকেআরকে ম্যাচ জেতানো রিংকু সিং দারুণ মৌসুম কাটিয়েছেন। দলের প্রয়োজন বুঝে ব্যাটিং করেছেন তিনি। ১৪ ম্যাচে দেড়শ’ ছোঁয়া স্ট্রাইক রেটে ৪৭৪ রান করেছেন তিনি।

রবিন্দ্র জাদেজা (চেন্নাই অলরাউন্ডার): ব্যাট হাতে জাদেজা তার সেরাটা খেলতে পারেননি। ১৬ ম্যাচে ১৯০ রান জাদেজার নামের সঙ্গে ঠিক মানানসই নয়। অবশ্য খুব বেশি ব্যাটিংয়ের সুযোগও তিনি পাননি। তবে বল হাতে ২০ উইকেট নিয়ে পারফেক্ট অলরাউন্ডারের ভূমিকা পালন করেছেন তিনি। স্পিনার হিসেবে তার চেয়ে বেশি উইকেট আছে তিনজনের।

রশিদ খান (গুজরাট স্পিনার): তাকে বোলার হিসেবেই খেলিয়েছে গুজরাট টাইটান্স। আইপিএলে এবারই সবচেয়ে বেশি গড়ে রান দিয়েছেন তিনি। তবে ২৭ উইকেট নিয়ে পুষিয়ে দিয়েছেন। ব্যাট হাতে ১৩০ রান করে ও দুই-তিনটা ম্যাচে দুর্দান্ত ঝড় দেখিয়ে বড় কিছুর আশা দিয়ে রেখেছেন তিনি।

মোহাম্মদ শামি (গুজরাট পেসার): আসরের সর্বোচ্চ ২৮ উইকেট নিয়েছেন মোহাম্মদ শামি। এর মধ্যে পাওয়ার প্লেতে তিনি ছিলেন প্রতিপক্ষের ত্রাস। শামির মোট উইকেটের ১৬জন প্রতিপক্ষের টপ থ্রি ব্যাটার। তার গড় ইকোনমি ৮.০৮।

মোহাম্মদ সিরাজ (ব্যাঙ্গালুরু পেসার): ডানহাতি পেসার মোহাম্মদ সিরাজ খুব বেশি উইকেট নেননি। ১৪ ম্যাচে ১৯ উইকেট তার। তবে ইমপ্যাক্ট উইকেট নিয়েছেন। বুদ্ধিদীপ্ত বোলিং করেছেন। পাওয়ার প্লেতে তাকে খেলা ছিল প্রতিপক্ষের জন্য কঠিন।

মুহিত শর্মা (গুজরাট পেসার): গত আসরে নেট বোলার ছিলেন মুহিত শর্মা। তিনিই এবার ১৭ ম্যাচে ২৭ উইকেট নিয়েছেন। লেন্থ ও পেসে তিনি ছিলেন অসাধারণ। নাকল বলে মাস্টার ক্লাস দেখিয়েছেন।

এছাড়া জশস্বী জয়সাওয়াল, শিভাম দুবে, ডেভন কনওয়ে, মাথিশা পাথিরানা, পিয়ূষ চাওয়া, অক্ষর প্যাটেলরা মৌসুম সেরা একাদশে জায়গা পাওয়ার যোগ্য। তবে অল্পের জন্য স্ট্যান্ড বাই রাখা হয়েছে তাদের।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.