ভিনিসিয়ুসের জোড়া গোলে রিয়ালের ড্র, আলোচনায় রেফারির শেষ বাঁশি

0
99
রিয়াল মাদ্রিদ

লা লিগার চলতি মৌসুমে প্রথম দেখায় গত নভেম্বরে সান্তিয়াগো বের্নাবেউয়ে ভালেন্সিয়াকে ৫-১ গোলে হারিয়েছিল রিয়াল মাদ্রিদ। দ্বিতীয় দেখায় ২-২ গোলের ব্যবধানে ড্র করেছে স্প্যানিশ জায়ান্টরা।
সব কিছু ছাড়িয়ে আলোচনায় ম্যাচের শেষ সময়ে রেফারির বাঁশি।

শনিবার (২ মার্চ) দিবাগত রাতে ম্যাচে তিন মিনিটের মধ্যে হজম করল দুই গোল। পরে অবশ্য দারুণভাবে ঘুরে দাঁড়ায় রিয়াদ মাদ্রিদ। জোড়া গোল করেন ভিনিসিয়ুস জুনিয়র। তবে ম্যাচের সমাপ্তি ঘটে চরম নাটকীয়তায়। ব্রাহিম দিয়াসের ক্রসে হেডে বল জালে পাঠান জুড বেলিংহ্যাম।

কিন্তু তার আগেই ম্যাচ শেষের বাঁশি বাজান রেফারি। এতে ছড়িয়ে পড়ে তুমুল উত্তেজনা। রেফারিকে ঘিরে ধরে প্রতিবাদ জানাতে থাকেন রিয়ালের খেলোয়াড়রা। ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া দেখিয়ে লাল কার্ড দেখেন বেলিংহ্যাম। অ্যাঙ্কেলের চোট কাটিয়ে তিন সপ্তাহ পর এই ম্যাচ দিয়ে মাঠে ফেরেন এই ইংলিশ মিডফিল্ডার।

গত মৌসুমে এই মেস্তায়া স্টেডিয়ামে ভিনিসিয়ুস বর্ণবাদের শিকার হওয়ার পর তোলপাড় উঠেছিল বিশ্বজুড়ে। ওই ম্যাচের শেষ দিকে লাল কার্ডও দেখেছিলেন তিনি, রিয়াল মাদ্রিদ হেরেছিল ১-০ গোলে। তারপর প্রথমবার সেখানে খেলল স্পেনের সফলতম দলটি।

এই ম্যাচে শুরু থেকে বল দখলে আধিপত্য করলেও সুযোগ তৈরি করতে ভুগছিল তারা। খেলার ধারার বিপরীতে ২৭ থেকে ৩০তম মিনিটের মধ্যে দুই গোল করে এগিয়ে যায় ভালেন্সিয়া।

প্রথমটিতে ডান দিকে বক্সের বাইরে প্রতিপক্ষ খেলোয়াড়ের থেকে বল কেড়ে নেওয়ার পর তা হারিয়ে ফেলেন ডিফেন্ডার ফেরলঁদ মঁদি। সতীর্থের ক্রসে চমৎকার হেডে গোল করেন দুরো।

পরেরটিতে মারাত্মক ভুল করে বসেন দানি কারভাহাল। এই স্প্যানিশ ডিফেন্ডার ব্যাক-পাস দেন গোলরক্ষকের উদ্দেশে, ছুটে গিয়ে বল নিয়ন্ত্রণে নিয়ে এগিয়ে আসা আন্দ্রি লুনিনকে কাটিয়ে ফাঁকা জালে বল পাঠান ইয়ারেমচুক।

প্রথমার্ধে রিয়ালের অস্বস্তিময় পথচলায় কিছুটা স্বস্তি হয়ে আসে যোগ করা সময়ে ভিনিসিয়ুসের গোল। ডান দিক থেকে কারভাহালের বাড়ানো বলে গোলরক্ষক হাত ছোঁয়ালেও ক্লিয়ার করতে পারেননি। রদ্রিগোর পা ছুঁয়ে বল যায় ভিনিসিউসের কাছে। কাছ থেকে ব্যবধান কমান ব্রাজিলিয়ান ফরোয়ার্ড।

৭৬তম মিনিটে ব্রাহিমের ক্রসেই কাছ থেকে হেডে সমতায় ফেরান ভিনিসিয়ুস। ভালেন্সিয়ার খেলোয়াড়রা রেফারিকে ঘিরে ধরে অফসাইডের দাবি জানালেও ভিএআরে বহাল থাকে গোলের সিদ্ধান্ত। এরপর রেফারির শেষ বাঁশি ও বেলিংহ্যামের বল জালে পাঠানোর ওই ঘটনা। যা জন্ম দিয়েছে তুমুল আলোচনার।

২৭ ম্যাচে ২০ জয় ও ৬ ড্রয়ে ৬৬ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে আছে রিয়াল। এক ম্যাচ কম খেলে ৫৯ পয়েন্ট নিয়ে জিরোনা দুইয়ে, ৫৭ পয়েন্ট নিয়ে বার্সেলোনা তিনে আছে। ২৬ ম্যাচে ৩৭ পয়েন্ট নিয়ে নবম স্থানে আছে ভালেন্সিয়া।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.