বিশ্বের সবচেয়ে বড় প্রমোদতরি

0
109
সব কাজ শেষে সমুদ্রে নামলে ‘আইকন অব দ্য সিজ’ নামের প্রমোদতরি দেখতে এমনই হবে

বিশ্বের সবচেয়ে বড় যাত্রীবাহী জাহাজ ছিল টাইটানিক। বিপুল উৎসাহ-কৌতূহল নিয়ে সেই জাহাজে চড়েছিল মানুষ। প্রথম যাত্রাতেই আটলান্টিকে ডুবে গেছে সেই ঐতিহাসিক জাহাজ। কত শোকগাথা, গল্পগাথা সেই জাহাজকে ঘিরে। দিন গেছে, তারপর টাইটানিকের চেয়ে আরও বড় জাহাজ এসেছে। কিন্তু টাইটানিকের মতো বিশ্ববাসীর মনে আর কোনোটিই সেভাবে জায়গা করে নিতে পারেনি। এবার সাগরে আসছে বিশ্বের সবচেয়ে বড় প্রমোদতরি, যা টাইটানিকের চেয়ে দেড় গুণ বড়। মালিকপক্ষের দাবি মানলে এই প্রমোদতরি নিয়েও মানুষের আগ্রহের কমতি নেই। আগামী জানুয়ারিতে আনুষ্ঠানিকভাবে সাগরে নামলেও এখনই রেকর্ডসংখ্যক টিকিট বিক্রি হয়ে গেছে।

ইউরোপের দেশ ফিনল্যান্ডে এই প্রমোদতরি তৈরি করা হয়েছে। ইতিমধ্যে পরীক্ষামূলকভাবে প্রথমবারের মতো সাগরেও চালানো হয়েছে। আগামী অক্টোবরে আনুষ্ঠানিকভাবে মালিকানা প্রতিষ্ঠানের কাছে প্রমোদতরিটি হস্তান্তর করা হতে পারে।

রয়্যাল ক্যারিবিয়ান ইন্টারন্যাশনালের মালিকানাধীন ‘আইকন অব দ্য সিজ’ নামের এই প্রমোদতরির দৈর্ঘ্য ৩৬৫ মিটার বা প্রায় ১ হাজার ২০০ ফুট। আনুমানিক ওজন ২ লাখ ৫০ হাজার ৮০০ টন। ওজন ধারণের ক্ষমতা বোঝাতে বলা যায়, প্রমোদতরিটি দুটি সিএন টাওয়ারকে ভাসিয়ে রাখতে পারবে। কানাডার টরন্টোয় অবস্থিত সিএন টাওয়ারের উচ্চতা প্রায় ৫৫৩ মিটার বা ১ হাজার ৮১৫ ফুট।

২০২৪ সালের জানুয়ারিতে ক্যারিবীয় সাগরে আনুষ্ঠানিকভাবে যাত্রা শুরু করবে প্রমোদতরিটি। বিশাল এই প্রমোদতরিতে প্রায় ৫ হাজার ৬১০ যাত্রী ও ২ হাজার ৩৫০ ক্রু থাকার সুব্যবস্থা রয়েছে। এতে থাকছে একটি ‘ওয়াটার পার্ক’। এটিই হতে যাচ্ছে সমুদ্রে ভাসমান বিশ্বের বৃহত্তম ‘ওয়াটার পার্ক’। এর নাম রাখা হয়েছে ‘ক্যাটাগরি সিক্স’। এই পার্কে রেকর্ডসংখ্যক ছয়টি ‘ওয়াটার স্লাইড’ যুক্ত থাকবে। তবে যেসব অতিথি অবকাশে আরও বেশি রোমাঞ্চ উপভোগ করতে চাইবেন, তাঁদের জন্য প্রমোদতরিতে থাকছে সাতটি পুল ও নয়টি ঘূর্ণিজলের ব্যবস্থা।

অভূতপূর্ব

ফিনল্যান্ডের ‘মায়ার তুর্কু’ নামক শিপইয়ার্ডে এই প্রমোদতরি নির্মাণ করা হয়েছে। তুর্কু শহরে অবস্থিত এই শিপইয়ার্ড ইউরোপের অন্যতম শীর্ষস্থানীয় জাহাজ নির্মাতা প্রতিষ্ঠান হিসেবে বেশ সুপরিচিত। প্রমোদতরির মালিকানা প্রতিষ্ঠান রয়্যাল ক্যারিবিয়ান ইন্টারন্যাশনালের সদর দপ্তর যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডার মিয়ামিতে। চলতি বছরের শুরুতে প্রতিষ্ঠানের প্রেসিডেন্ট ও প্রধান নির্বাহী মাইকেল বেইলি ঘোষণা দিয়েছিলেন, এযাবৎ বিশ্বের সবচেয়ে বড় প্রমোদতরির অভিষেক হবে ২০২৪ সালে। এর আগেই আগামী ২৬ অক্টোবর প্রমোদতরিটি রয়্যাল ক্যারিবিয়ান ইন্টারন্যাশনালের বহরে যোগ হবে।

বর্তমানে বিশ্বের সবচেয়ে বড় প্রমোদতরির খেতাবের মালিক ‘ওয়ান্ডার অব দ্য সিজ’। এটিরও মালিক রয়্যাল ক্যারিবিয়ান। এই প্রমোদতরি গত বছরই উদ্বোধনী যাত্রা করে। এটির দৈর্ঘ্য ১ হাজার ১৮৮ ফুট। অর্থাৎ আইকন অব দ্য সিজের চেয়ে এটি কিছুটা ছোট। ওয়ান্ডার অব দ্য সিজে ডেক রয়েছে ১৮টি।

রয়্যাল ক্যারিবিয়ান ইন্টারন্যাশনালের ভাষ্য, আইকন অব দ্য সিজে বিশ্বের সর্বশেষ প্রযুক্তি ব্যবহার করা হচ্ছে। প্রতিষ্ঠানটির ৫০ বছরের ইতিহাসের অভিজ্ঞতাকে কাজে লাগিয়ে এই প্রমোদতরি নির্মাণ করছে তারা।

রয়্যাল ক্যারিবিয়ান ইন্টারন্যাশনালের প্রেসিডেন্ট মাইকেল বেইলি গণমাধ্যমকে বলেছিলেন, তাঁরা এই প্রমোদতরিকে পারিবারিক অবকাশের দারুণ একটি জায়গা হিসেবে তৈরি করছেন। এটি তৈরিতে যে কর্মশক্তি ও সময় ব্যয় হয়েছে, তাকে এককথায় অভূতপূর্ব বলা যায়।

রয়্যাল ক্যারিবিয়ানের বিবৃতি থেকে জানা যায়, আনুষ্ঠানিকভাবে সমুদ্রযাত্রা শুরুর আগে গত ২২ জুন আইকন অব দ্য সিজকে পরীক্ষামূলকভাবে চালানো হয়েছে। প্রথম পরীক্ষায় আইকন অব দ্য সিজ কয়েক শ মাইল পথ পরিভ্রমণ করেছে। এ সময় প্রমোদতরির প্রধান ইঞ্জিন, হাল, ব্রেক–ব্যবস্থা, স্টিয়ারিং, শব্দ, কম্পনের মাত্রাসহ সবকিছুই পরীক্ষা করা হয়।

যেন পূর্ণাঙ্গ বাড়ি

প্রমোদতরিতে খাবারদাবার, পান ও বিনোদনের ৪০টির বেশি উপায়-উপকরণ থাকছে। প্রতিষ্ঠানটি বলছে, এর মধ্যে অনেক সুযোগ-সুবিধাই যাত্রীদের ভাড়ার মধ্যে অন্তর্ভুক্ত থাকবে। এতে ২০টি ডেক ও ৮টি সন্নিহিত এলাকা থাকছে। অবকাশযাপনকারীদের প্রতিটি চাওয়া পূরণে সর্বোচ্চ চেষ্টা থাকবে। এখানে নতুন জুটিদের জন্য যেমন বিশেষ স্থান থাকবে, তেমনি শুধু প্রাপ্তবয়স্কদের জন্য থাকবে আলাদা জায়গা।

রয়্যাল ক্যারিবিয়ান জানাচ্ছে, প্রমোদতরিতে ২৮ শ্রেণির থাকার ব্যবস্থা রয়েছে। পরিবারগুলোর কথা মাথায় রেখে নানা শ্রেণিবিন্যাস করা হয়েছে। সমুদ্রের দৃশ্য ভালোভাবে উপভোগ করতে বিশেষ নকশায় প্রমোদতরি নির্মাণ করা হয়েছে। যাঁরা দল বেঁধে ভ্রমণ করেন, তাঁদের জন্য বড় পরিসরে জায়গা রাখা হয়েছে। একটি নিখুঁত বাড়ির নকশা তৈরির জন্য বিপুল সময় ব্যয় করা হয়েছে।

‘আইকন অব দ্য সিজ’ রয়্যাল ক্যারিবিয়ান ইন্টারন্যাশনালের প্রথম প্রমোদতরি, যা তরলীকৃত প্রাকৃতিক গ্যাস (এলএনজি) ও ফুয়েল সেল প্রযুক্তিতে চলবে। প্রতিষ্ঠানটি পরিবেশবান্ধব প্রযুক্তির দিকে ঝুঁকছে। এরই অংশ হিসেবে প্রমোদতরিতে এই প্রযুক্তি যোগ করা হয়েছে।

প্রতিদিন কাজ করছেন ২ হাজার ৬০০ কর্মী

প্রতিদিন প্রায় ২ হাজার ৬০০ কর্মী ‘আইকন অব দ্য সিজ’ তৈরির কাজ করে চলেছেন। সমুদ্রে পরীক্ষার সময় শত শত বিশেষজ্ঞ প্রমোদতরিতে ছিলেন। তাঁরা চার দিন ধরে এর কর্মক্ষমতা মূল্যায়ন করেন।

রয়্যাল ক্যারিবিয়ান বলছে, সমুদ্রে নামিয়ে প্রমোদতরির দ্বিতীয় ধাপের পরীক্ষা করা হবে। বছরের শেষ দিকে এই পরীক্ষা চালানো হতে পারে।

রেকর্ড বিক্রি

গুঞ্জন রয়েছে, ইতিমধ্যে প্রমোদতরিতে ভ্রমণের রেকর্ডসংখ্যক অগ্রিম টিকিট বিক্রি হয়ে গেছে। রয়্যাল ক্যারিবিয়ান ইন্টারন্যাশনালের ত্রৈমাসিক আর্থিক বিবরণী প্রকাশের সময় প্রতিষ্ঠানের প্রেসিডেন্ট মাইকেল বেইলি আইকন অব দ্য সিজকে আক্ষরিক অর্থেই তাঁদের এখন পর্যন্ত সেরা নতুন পণ্য বলে দাবি করেন।

‘আইকন অব দ্য সিজ’ বছরজুড়ে চলবে। প্রমোদতরি প্রতিবার যুক্তরাষ্ট্রের মিয়ামি থেকে সাত রাতের জন্য পূর্ব ও পশ্চিম ক্যারিবীয় অঞ্চলে চলাচল করবে। এই যাত্রায় অবকাশযাপনকারীরা হাইডঅ্যাওয়ে সৈকতসহ বেশ কয়েকটি দ্বীপ পরিদর্শনের সুযোগ পাবেন।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.