তাঁরা সরকারের পদত্যাগ চাইতে এসে নিজেরাই পদত্যাগ করছেন: তথ্যমন্ত্রী

0
108
সচিবালয়ে আজ রোববার সংবাদ সম্মেলনে কথা বলেন তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী হাছান মাহমুদ

গতকাল শনিবার রাজধানীর গোলাপবাগ মাঠে বিএনপির ঢাকা বিভাগীয় গণসমাবেশ হয়। এই সমাবেশে জাতীয় সংসদ থেকে বিএনপির সংসদ সদস্যরা পদত্যাগের ঘোষণা দেন। আজ জাতীয় সংসদের স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরীর কাছে পদত্যাগপত্র জমা দিয়েছেন বিএনপির সংসদ সদস্যরা। পাঁচজন সশরীর পদত্যাগপত্র দিয়েছেন।বাকি দুজনের একজন বিদেশে, আরেকজন অসুস্থ। এ কারণে তাঁরা সশরীর পদত্যাগপত্র দেননি।

হাছান মাহমুদ বলেন, পদত্যাগের মাধ্যমে বিএনপি গণতান্ত্রিক ব্যবস্থা বাধাগ্রস্ত করতে চাইছে। অবশ্য এতে সরকারের কোনো ক্ষতি হবে না। নিয়ম অনুযায়ী, আসনগুলোতে উপনির্বাচন হবে।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, ৩৫০ জন সংসদ সদস্যের বিপরীতে বিএনপির ৭ জনের পদত্যাগে সরকারের কিছুই যায়-আসে না। তাঁরা সংসদে কথা বলতে পারতেন। তাঁদের লাভই হতো। কিন্তু পদত্যাগের মাধ্যমে তাঁদের ক্ষতি হলো।

হাছান মাহমুদ বলেন, ঢাকায় সমাবেশ করার জন্য সরকার বিএনপিকে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানসহ চারটি স্থানের প্রস্তাব দিয়েছিল। কিন্তু সেসব স্থান তাদের পছন্দ হয়নি। তাদের পছন্দ হয়েছে গোলাপবাগ মাঠ, যেখানে গরু-ছাগলের হাট বসে।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, ঢাকার গণসমাবেশে বিএনপি ১০ লাখ মানুষ জড়ো করার ঘোষণা দিলেও বড়জোর ৫০ হাজার মানুষ হয়েছে। আওয়ামী লীগের থানা পর্যায়ে সমাবেশে এর চেয়ে বেশি মানুষ জমায়েত হয়।

গতকালের সমাবেশে বিএনপি ১০ দফা দাবি দিয়েছে। এ প্রসঙ্গে তথ্যমন্ত্রী বলেন, এসব দাবি গতানুগতিক। আগেও দলটি এসব দাবি জানিয়েছিল।

সরকার দাবি না মানলে আগামী নির্বাচনে বিএনপি অংশগ্রহণ করবে না বলে জানিয়েছে। এ বিষয়ে জানতে চাইলে তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘এটা হবে তাদের জন্য আত্মহনন।’

কূটনীতিকদের বিভিন্ন বক্তব্যের বিষয়ে হাছান মাহমুদ বলেন, তাঁদের জেনেভা কনভেনশন মেনে চলা উচিত। রাজনীতিবিদদের প্রতিযোগিতা করে বিদেশি কূটনীতিকদের কাছে যাওয়া উচিত নয় বলে মন্তব্য করেন তিনি।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, সরকারের ওপর বিদেশিদের কোনো চাপ নেই। বর্তমান সরকারকে কোনো বিদেশি শক্তি ক্ষমতায় বসায়নি। বিদেশি শক্তি ক্ষমতার পালাবদল করতে পারে না।

বিএনপি ডলার খরচ করে বাংলাদেশের বিরুদ্ধে লবিস্ট নিয়োগ করেছে বলে অভিযোগ করেন তথ্যমন্ত্রী।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.