মাধ্যমিকের ৩৬ শতাংশ শিক্ষক সমিতির কাছ থেকে প্রশ্নপত্র কেনেন

0
244

মাধ্যমিক স্তরের শিক্ষকদের একটি বড় অংশ এখনো নিজেরা প্রশ্নপত্র তৈরি করতে পারেন না। তাঁদের মধ্যে ৩৬ দশমিক ৮ শতাংশ শিক্ষক বলেছেন, অভ্যন্তরীণ পরীক্ষার জন্য শিক্ষক সমিতির কাছ থেকে প্রশ্নপত্র কেনেন। আর ১৪ দশমিক ৪ শতাংশ শিক্ষক বলেছেন বাজার থেকে প্রশ্নপত্র কেনেন। ১০ দশমিক ৩ শতাংশ শিক্ষক অন্য শিক্ষকদের দিয়ে প্রশ্নপত্র তৈরি করেন।

মাধ্যমিক শিক্ষকদের এই দৈন্যদশা উঠে এসেছে গণসাক্ষরতা অভিযানের এক গবেষণায়।

‘এডুকেশন ওয়াচ ২০১৮-১৯-চতুর্থ টেকসই উন্নয়ন অভীষ্টের আলোকে বাংলাদেশের মাধ্যমিক শিক্ষাস্তরের শিক্ষকবৃন্দ’ নামে এ গবেষণা প্রতিবেদনটি আজ রোববার প্রকাশ করা হয়েছে। ৬০০ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের তিন হাজার শিক্ষকের কাছ থেকে তথ্য নিয়ে প্রতিবেদনটি করা হয়েছে।

প্রতিবেদনে বলছে, ৪৩ দশমিক ৭ শতাংশ শিক্ষক দাবি করেছেন, তাঁরা নিজেরা প্রশ্নপত্র তৈরি করেন। এমন শিক্ষকদের মধ্যে সরকারি বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের হার বেশি (৭৬ দশমিক ৮ শতাংশ)। প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, সরকার বিনা মূল্যে পাঠ্যপুস্তক দিচ্ছে। শিক্ষা শ্রেণিকক্ষেই হওয়া উচিত। তারপরও শিক্ষকেরা গাইড বই ব্যবহার করছেন এবং গৃহশিক্ষকতায় অংশ নিচ্ছেন। ৩৭ দশমিক ১ শতাংশ শিক্ষক গাইড বই ব্যবহার করছেন।

মাধ্যমিকে সামগ্রিকভাবে ২২ দশমিক ৪ শতাংশ শিক্ষক গৃহশিক্ষকতা করার কথা জানিয়েছেন। তারা গড়ে ১ থেকে শুরু করে ২৩০ জন পর্যন্ত শিক্ষার্থীকে পড়ান। গৃহশিক্ষকতায় গণিতের শিক্ষকেরা শীর্ষে। এরপর যথাক্রমে ইংরেজি ও বিজ্ঞানের বিষয়ের শিক্ষকেরা।

রাজধানীর আগারগাঁওয়ে এক অনুষ্ঠানের মাধ্যমে প্রতিবেদনটি প্রকাশ করা হয়। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী। আরও উপস্থিত ছিলেন সাংসদ আরোমা দত্ত, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের এসডিজিবিষয়ক মুখ্য সমন্বয়কারী আবুল কালাম আজাদ, গণসাক্ষরতা অভিযানের নির্বাহী পরিচালক রাশেদা কে চৌধূরী, অধ্যাপক মনজুর আহমেদ।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.