ফোনালাপ ফাঁসের পর ডাকসু ভিপি নুরের কক্ষে তালা

0
184

এক প্রকল্প কর্মকর্তার কাছে টেলিফোনে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের (ডাকসু) ভিপি নুরুল হক নুরের ‘তদবির’ এবং প্রবাসী এক বাংলাদেশির সঙ্গে আর্থিক সহায়তার বিষয়ে কথোপকথনের অডিও ফাঁসের সংবাদ একটি বেসরকারি টেলিভিশনে প্রচারিত হয়েছে। তবে ফোনালাপ ফাঁসকে তিনি ‘রাষ্ট্রীয় ষড়যন্ত্র’ বলে মন্তব্য করেছেন।

ফোনালাপ ফাঁসের জেরে বুধবার দুপুরে ভিপি নুরের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ তুলে তার পদত্যাগ ও গ্রেপ্তারের দাবিতে তার কক্ষে তালা ঝুলিয়েছে মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের একাংশ। এর আগে ডাকসু ভবনের সামনে নুরের কুশপুত্তলিকা দাহ করে সংগঠনটির নেতাকর্মীরা। তারা তালা লাগিয়ে দরজায় দুটি প্ল্যাকার্ড ঝুলান। এতে লেখা আছে, ‘দুর্নীতিবাজ নুরের পদত্যাগ চাই’, ‘দুর্নীতিবাজ নুরের ঢাবিতে ঠাঁই নেই’। এতে নেতৃত্ব দেন অধ্যাপক আ ক ম জামাল উদ্দিন।

অধ্যাপক জামাল বলেন, দীর্ঘ ২৮ বছর পর ডাকসু সচল হয়েছে। ডাকসুর ভিপি একটি মর্যাদাবান পদ। যারা অতীতে ডাকসুর ভিপি-জিএস হয়েছেন, তারা আজ জাতীয় পর্যায়ের নেতা। অথচ ভিপি পদকে কলঙ্কিত করেছেন নুর। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মর্যাদা রক্ষার্থে নুরকে পদত্যাগ করতে হবে। এই পদে দুর্নীতিবাজ কেউ থাকতে পারে না।

তবে অভিযোগ অস্বীকার করে ভিপি নুর বলেন, শুরু থেকেই তার বিরুদ্ধে সরকারি দল ও ছাত্রলীগ নানা ধরনের অপপ্রচার চালিয়ে আসছে। ডাকসু নির্বাচনের সময় শিবিরের প্যাডে তার নামে বিবৃতি বানিয়ে অপপ্রচার চালিয়েছে। এখানে আসলে ছাত্রলীগই উস্কানি দিচ্ছে পেছন থেকে। তথাকথিত মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ তাদের নানা কর্মকাণ্ডের মাধ্যমে মুক্তিযোদ্ধাদের বিতর্কিত করেছে। একজন বিতর্কিত শিক্ষক এবং ছাত্রলীগ থেকে বহিস্কৃত নেতারা এই সংগঠন করে।

তিনি বলেন, ডাকসু কোনো ব্যক্তিগত প্রতিষ্ঠান নয়। সেখানে তারা তালা মারার দুঃসাহস দেখিয়েছে। সেখানে অবশ্যই কারও ইন্ধন ছিল। এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টরকে জানানো হলেও তিনি সদুত্তর দেননি এবং সহযোগিতাও করেননি। এ থেকে বোঝা যাচ্ছে যে, এখানে প্রশাসনেরও ইন্ধন রয়েছে। তিনি বলেন, বিকেলেই তিনি তালা ভেঙে অফিস করেছেন।

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক গোলাম রব্বানী অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, নুরকে সত্য কথা বলার অভ্যাস করতে হবে। সে যেন ছাত্র-শিক্ষকের সম্পর্ক রক্ষা করে চলে।

ভিপি নুরের ব্যাখ্যা : ফাঁস হওয়া অডিও কল রেকর্ডিং নিয়ে নিজের অবস্থান ব্যাখ্যা করেছেন ভিপি নুর। মঙ্গলবার রাতে ফেসবুক লাইভে এসে নিজের অবস্থান জানান তিনি। এতে নুর বলেন, ‘আমার আন্টির কনস্ট্রাকশনের (নির্মাণ কাজের) ব্যবসা আছে। তার একটি কাজে ব্যাংক গ্যারান্টি দেওয়ার সময় শেষের দিকে ছিল। সময় শেষের মাত্র দুদিন আগে ফোন দিয়ে তিনি জানান, আমি কাউকে দিয়ে ব্যাংক গ্যারান্টি করিয়ে রাখতে পারব কি-না। তখন আমি আমার পরিচিত একজনকে, যিনি কনস্ট্রাকশন ব্যবসায় জড়িত, বলেছিলাম যে ১৩ কোটি টাকার কাজের ব্যাংক গ্যারান্টি দিতে পারবেন কি-না।’ নুর বলেন, এটাকে ইস্যু করে রাষ্ট্রীয় পৃষ্ঠপোষকতায় প্রোপাগান্ডা ছড়ানো হচ্ছে।

নুর বলেন, ‘অপর একজন আমাকে টাকা দিতে চেয়েছে। উনি আমাদের সাহায্য করতে চেয়েছেন। আমরা বলেছি, আমরা অপরিচিত কারও কাছ থেকে সাহায্য নেব না। তিনি আমার কাছ থেকে ই-মেইল অ্যাড্রেস চেয়েছিলেন। আমি বলেছি, সাহায্য প্রয়োজন হলে আমরা জানাব। সৌজন্যের জন্য এটা তাকে বলেছি। এ ছাড়া এ রকম অসম্পূর্ণ রেকর্ডিং মানুষকে বিভ্রান্ত করার জন্য ছড়ানো হয়েছে। সম্পূর্ণ রেকর্ডিং শুনলে বুঝতে পারবেন। এটা শুধু আংশিক কথোপকথন। সারা বাংলাদেশে আমাদের যে ইমেজ তৈরি হয়েছে তা নষ্ট করার জন্য এটি করা হয়েছে।’

তিনি বলেন, এর আগে আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দ ও প্রশাসনিক কর্মকর্তারা বিভিন্ন সময়ে আমাদের চাকরি ও পদ অফার করেছেন। কিন্তু আমরা তা প্রত্যাখ্যান করেছি। এ সময় তিনি ‘উদ্দেশ্যপ্রণোদিত ও মানহানিকর’ সংবাদ প্রচার করার জন্য বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেল ‘নিউজ ২৪’ -এর বিরুদ্ধে মামলা করবেন বলেও জানান।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে