এ. কে. আজাদকে ঢাকা ইউনিভার্সিটি অ্যালামনাইর সংবর্ধনা

0
533
হা-মীম গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক এ. কে. আজাদকে সংবর্ধনা দিয়েছে ঢাকা ইউনিভার্সিটি অ্যালামনাই অ্যাসোসিয়েশন।

সর্বোচ্চ রফতানির জন্য বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে রফতানি ট্রফি পাওয়ায় হা-মীম গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক এ. কে. আজাদকে সংবর্ধনা দিয়েছে ঢাকা ইউনিভার্সিটি অ্যালামনাই অ্যাসোসিয়েশন। শনিবার রাতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের নবাব নওয়াব আলী চৌধুরী সিনেট ভবনের অ্যালামনাই ফ্লোরে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে তাকে এ সংবর্ধনা দেওয়া হয়। একই সঙ্গে পুলিশের ডিআইজি থেকে অ্যাডিশনাল আইজি হওয়ায় অ্যালামনাইর সদস্য মাহবুব হোসেনকেও সংবর্ধনা দেওয়া হয়।

অ্যালামনাইর পক্ষ থেকে তাদের সংবর্ধনা দেন সংগঠনের মহাসচিব রঞ্জন কর্মকার, সহসভাপতি আনোয়ারুল আলম পারভেজ, যুগ্ম মহাসচিব আশরাফুল আলম মুকুল, সাংগঠনিক সম্পাদক আফজালুর রহমান বাবু, কোষাধ্যক্ষ দেওয়ান রাশেদুল হাসান, প্রচার ও যোগাযোগ সম্পাদক কাজী মোয়াজ্জেম হোসেন, সদস্য সেলিনা খালেক প্রমুখ।

বর্তমানে ঢাকা ইউনিভার্সিটি অ্যালামনাই অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতির দায়িত্ব পালন করছেন এ. কে. আজাদ। সংবর্ধনা পাওয়ার পর তিনি বলেন, ‘এই সম্মাননা পেয়ে আমি আনন্দে অভিভূত। এর জন্য ঢাকা ইউনিভার্সিটি অ্যালামনাই অ্যাসোসিয়েশনের সব সদস্যের প্রতি কৃতজ্ঞ।’

তিনি আরও বলেন, ‘রফতানিতে হা-মীম গ্রুপ বাংলাদেশের শীর্ষস্থানে অবস্থান করছে। হা-মীম গ্রুপ এ বছর ৫৫০ মিলিয়ন ডলারের পোশাক রফতানি করেছে। এ ছাড়া প্রতিষ্ঠানটি দেশের ৬৫ হাজার লোকের কর্মসংস্থানের সৃষ্টি করেছে।’ আগামী পাঁচ বছরের মধ্যে হা-মীম গ্রুপের রফতানি এক বিলিয়ন ডলারে উন্নীত হবে এবং এক লাখ লোকের কর্মসংস্থান হবে বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

এ. কে. আজাদ বলেন, ‘ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ১০০ বছর পূর্তি উপলক্ষে সবাইকে একসঙ্গে কাজ করতে হবে। এ ছাড়া বিদেশি সংগঠনগুলোকে উন্নয়নমূলক কর্মকাণ্ডে সম্পৃক্ত করতে হবে।’

মাহবুব হোসেন বলেন, ‘ঢাকা ইউনিভার্সিটি অ্যালামনাই অ্যাসোসিয়েশনের এ সম্মাননা পেয়ে আমি অত্যন্ত আনন্দিত। নিজেকে গর্বিত মনে হচ্ছে। অ্যালামনাই অ্যাসোসিয়েশনের সবার প্রতি আমি অত্যন্ত কৃতজ্ঞ।’

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.