এবার ফ্রান্স ও জার্মানি নিজ নাগরিকদের ইথিওপিয়া ছাড়তে নির্দেশ দিলো

0
36
জার্মানি

নিজেদের নাগরিকদের ইথিওপিয়া ছাড়ার নির্দেশ দিয়েছে ফ্রান্স ও জার্মানি। আফ্রিকার দ্বিতীয় বৃহত্তম জনবহুল দেশ ইথিওপিয়ার সরকারি বাহিনীর সঙ্গে উত্তরাঞ্চলীয় টাইগ্রে অঞ্চলের বিদ্রোহীদের বছরব্যাপী সংঘাত যখন নতুন মোড় নিচ্ছে তখন এই নির্দেশ দিয়েছে পশ্চিমা দেশ দুটি। সম্প্রতি যুক্তরাষ্ট্র ও যুক্তরাজ্যও তাদের দেশের নাগরিকদের দেশটি ছাড়ার নির্দেশ দিয়েছিল।

মঙ্গলবার ফ্রান্স তার নাগরিকদের ‘কোনোরকম দেরি’ না করে ইথিওপিয়া ছাড়ার পরামর্শ দেয়। জার্মানিও তাদের দেশের নাগরিকদের যত সম্ভব দ্রূত ইথিওপিয়া ত্যাগের নির্দেশ দিয়েছে। আর জাতিসংঘ বলেছে, তারা ইথিওপিয়ায় সংস্থাটির কর্মীদের ‘অস্থায়ীভাবে’ অন্য জায়গায় সরিয়ে নিয়েছে। তবে তারা দেশটিতেই থাকবে। খবর আল-জাজিরার।

মঙ্গলবার জাতিসংঘের মুখপাত্র স্টেফানি দুজারিক বলেন, পরিস্থিতি কোন দিকে যাচ্ছে আমরা প্রতিনিয়ত পর্যবেক্ষণ করছি। একইসঙ্গে আমরা আমাদের কর্মীদের নিরাপত্তার বিষয়টি মাথায় রেখে যেসব মানুষ আমাদের সহাযোগিতা কামনা করে তাদের তা দিতে কার্যক্রম চলমান রেখেছি।

টাইগ্রে বাহিনী রাজধানী আদ্দিস আবাবার কাছাকাছি পৌঁছে গেছে এমন দাবির পরই এসব নির্দেশনা আসে। ওই সব দাবির পরিপ্রেক্ষিতে গেল সোমবার সন্ধ্যায় দেশটির প্রধানমন্ত্রী আবি আহমেদও ঘোষণা করেন, মঙ্গলবার লড়াইয়ে তিনি তার সেনাদের সামনে থেকে নেতৃত্ব দিবেন। তিনি বলেন, আমরা ইথিওপিয়াকে রক্ষার চূড়ান্ত পর্যায়ে আছি।

দেশটির উত্তরাঞ্চলীয় বেশিরভাগ অংশের সঙ্গে কেন্দ্রের যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে এবং সাংবাদিকদের ওই অঞ্চলে প্রবেশধিকার সীমিত করা হয়েছে, যার জন্য প্রকৃতই সেখানে কি ঘটেছে তা বলা কঠিন। তবে আদ্দিস আবাবার সরকারি পক্ষ মঙ্গলবার জোর দিয়ে বলছে, দেশের যুব সম্প্রদায়সহ নিরাপত্তারক্ষীরা রাজধানীর নিরাপত্তা এবং স্থিতিশীলতা বজায় রাখতে কাজ করছে। তারা কূটনীতিকদের উদ্বিগ্ন হতে বারণ করেছে। ছয় মাস ধরে দেশটিতে জরুরি অবস্থা জারি করে রাখা এই সরকার টাইগ্রে বিদ্রোহীদের দেশের বিভিন্ন অঞ্চল দখলের দাবির ব্যাপারে সবসময় বলে আসছে, বিদ্রোহীরা অঞ্চল দখলের ব্যাপারে অতিরঞ্জিত দাবি করে থাকে।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে