আত্মপ্রকাশ করেই ১৩ দফা কর্মসূচি নতুন জোটের

0
34
'ফ্যাসিবাদবিরোধী বাম মোর্চা'

সাত বামপন্থি দলকে নিয়ে নতুন রাজনৈতিক জোট ‘ফ্যাসিবাদবিরোধী বাম মোর্চা’র আত্মপ্রকাশ ঘটেছে। দেশে বাম আন্দোলন এবং শ্রমিক-কৃষক ও জনগণের লড়াই-সংগ্রামের মাধ্যমে ঐক্যবদ্ধ আন্দোলন গড়ে তোলার প্রত্যয়ে গঠিত হয়েছে ইস্যুভিত্তিক এই জোটটি।

শনিবার রাজধানীর তোপখানা রোডে আ ফ ম মাহবুবুল হক মিলনায়তনে এক সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে নতুন এই জোটের আত্মপ্রকাশের ঘোষণা দেওয়া হয়। এ সময় ‘ফ্যাসিবাদী শাসনের’ অবসানের লক্ষ্যে জোটের ১৩ দফা কর্মসূচিও ঘোষণা করা হয়।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য উপস্থাপন করেন বাংলাদেশের সাম্যবাদী আন্দোলনের সমন্বয়ক শুভ্রাংশু চক্রবর্তী। উপস্থিত ছিলেন ফ্যাসিবাদবিরোধী বাম মোর্চার সমন্বয়ক ও নয়া গণতান্ত্রিক গণমোর্চার সভাপতি জাফর হোসেন, গণমুক্তি ইউনিয়নের আহ্বায়ক নাসির উদ্দীন আহম্মেদ নাসু, কমিউনিস্ট ইউনিয়নের আহ্বায়ক ইমাম গাজ্জালী, বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক দল-বাসদের (মাহবুব) কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য মহিন উদ্দিন চৌধুরী লিটন, বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক মজদুর পার্টির সভাপতি শহিদুল ইসলাম মুকুল এবং জাতীয় গণতান্ত্রিক গণমঞ্চের সভাপতি মাসুদ খান।

নতুন এই জোটের শরিক দলগুলোর মধ্যে বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক মজদুর পার্টি বাদে বাকি ছয়টি দলই সদ্য স্থগিত হওয়া ৯টি দল ও সংগঠনের সমন্বয়ে গড়ে ওঠা বামপন্থিদের আরেকটি জোট ‘৯ সংগঠন’-এ যুক্ত ছিল। বিভিন্ন ইস্যুতে মতবিরোধের কারণে এই সাতটি দলের সমন্বয়ে নতুন জোটটি গঠন করা হয়।

লিখিত বক্তব্যে শুভ্রাংশু চক্রবর্তী বলেন, জাতীয় ও আন্তর্জাতিক পর্যায়ে এক সংকটজনক সন্ধিক্ষণে দেশ। শোষক-শাসক শ্রেণি অতীতের ধারাবাহিকতায় দেশে আওয়ামী ফ্যাসিবাদী শাসন কায়েম করেছে। ২০১৪ সালে ভোটারবিহীন এবং ২০১৮ সালে ভোট ডাকাতির নির্বাচনে ক্ষমতায় আসা আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে ধনিকশ্রেণি অঢেল সম্পদের পাহাড় গড়েছে। দেশে মার্কিন-রুশ-চীন-ভারতসহ সাম্রাজ্যবাদী সম্প্রসারণবাদী ও আধিপত্যবাদী হস্তক্ষেপ গভীরতর হচ্ছে।

লিখিত বক্তব্যে জনজীবনের নানা সংকটের পাশাপাশি সীমাহীন লুটপাট-দুর্নীতি ও অর্থ পাচারের কথা তুলে ধরে আরও বলা হয়, সরকার ও তার দুস্কর্মের সহযোগীরা আবারও তামাশার নির্বাচনের আয়োজন করতে যাচ্ছে। এই প্রেক্ষাপটে আওয়ামী দুঃশাসনের অবসানের লক্ষ্যে সাতটি বামপন্থি সংগঠনের অংশগ্রহণে ফ্যাসিবাদবিরোধী বাম মোর্চার যাত্রা শুরু হলো।

সংবাদ সম্মেলন থেকে জোটের প্রথম কর্মসূচি হিসেবে আগামী ২৪ জানুয়ারি বেলা সাড়ে ৩টায় জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশের ঘোষণা দেওয়া হয়। বিদ্যুৎ, গ্যাস ও নিত্যপণ্যের দাম বৃদ্ধি এবং সামাজিক যোগযোগমাধ্যমে নজরদারি ও ফোনে আড়ি পাতার প্রতিবাদে এই কর্মসূচি পালিত হবে।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.