২০২৩ সালে খাদ্যসংকটে পড়তে পারে বিশ্ব

0
81
জাতিসংঘ, ফাইল ছবি: রয়টার্স

জলবায়ু পরিবর্তন, করোনা ও রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের জেরে গত কয়েক বছরে বিশ্বে অভুক্ত মানুষের সংখ্যা কয়েক গুণ বেড়েছে। সম্প্রতি এক আলোচনায় বিস্লে বলেন, সাড়ে পাঁচ বছর আগে যখন তিনি জাতিসংঘের খাদ্যসংক্রান্ত বিভাগের দায়িত্ব নেন, তখন পৃথিবীজুড়ে প্রায় ৮ কোটি মানুষের ঠিকমতো খাবার জুটত না। ভাবা হয়েছিল, সেই সংখ্যা কমিয়ে আনা যাবে, অথচ এখন তা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৩৪ দশমিক ৫ কোটি।

জাতিসংঘের তথ্য অনুসারে, ইউক্রেন বিশ্বের ৪০ কোটি মানুষের খাদ্য জোগায়, অথচ যুদ্ধের কারণে সেখান থেকে খাদ্যশস্য রপ্তানি প্রায় পুরোটাই বন্ধ। রাশিয়া দ্বিতীয় বৃহত্তম সার রপ্তানিকারী এবং অন্যতম বড় শস্য উৎপাদক, কিন্তু পশ্চিমা দুনিয়ার নিষেধাজ্ঞার জেরে বিশ্ববাজারে তাদের পণ্য ঠিকমতো আসছে না। সার রপ্তানিতে নিষেধাজ্ঞা চাপিয়েছে বৃহত্তম উৎপাদক চীন। ফলে অন্যান্য দেশে শস্য উৎপাদন মার খাচ্ছে। আবার ভারতসহ বিভিন্ন দেশে অতিরিক্ত গরম এবং বৃষ্টির অভাবে ব্যাহত হচ্ছে কৃষি উৎপাদন।

এই পরিস্থিতিতে যত দ্রুত সম্ভব সারের সরবরাহ ঠিক করা, শস্য বণ্টনব্যবস্থা মজবুত করা ও দারিদ্র্যসীমার নিচে থাকা মানুষের কাছে পণ্য পৌঁছে দেওয়ার ওপর জোর দিচ্ছে জাতিসংঘ। সে জন্য বিশ্বের ধনীদের এগিয়ে আসার আহ্বান জানাচ্ছে তারা। যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপীয় দেশগুলো ইতিমধ্যেই খাদ্যনিরাপত্তার জন্য অর্থ দিয়েছে। এবার বিশেষত অশোধিত তেলের চড়া দরের সুযোগে আরব দুনিয়া যে মুনাফা করছে, তার সামান্য অংশও যাতে গরিবদের স্বার্থে ব্যবহার করা হয়, সেই আহ্বান জানিয়েছেন বিস্লে।

তবে বিশ্ববাজারে খাদ্যমূল্য পাঁচ মাস ধরে কমছে। আগস্ট মাসে এফএওর খাদ্য মূল্যসূচক দাঁড়িয়েছে ১৩৮ পয়েন্ট, তা সত্ত্বেও গত বছরের আগস্ট মাসের তুলনায় এ বছরের আগস্ট মাসে খাদ্য মূল্যসূচক ৭ দশমিক ৯ শতাংশ বাড়তি। এ বছর খাদ্যমূল্য বাড়লেও স্বল্পতা নেই। কিন্তু আগামী বছরের মার্চ-এপ্রিল মাসে বিশ্ববাজারে খাদ্যসংকটের আশঙ্কা করছে এফএও।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.