১৬ বছর বয়সীর গোলের ‘দাম’ দিতে পারল না বার্সা

0
390
গোলের পর ফাতিকে নিয়ে সতীর্থদের উল্লাস। ছবি: এএফপি

লা লিগায় ওসাসুনার বিপক্ষে ২-২ গোলে ড্র করেছে বার্সেলোনা। কাতালান ক্লাবটির হয়ে লা লিগায় সর্বকনিষ্ঠ খেলোয়াড় হিসেবে গোল করেছে আনসু ফাতি

আগের ম্যাচেই বার্সেলোনার দ্বিতীয় সর্বকনিষ্ঠ খেলোয়াড় হিসেবে তার অভিষেক। খেলা শেষে তাকে বুকে টেনে নিয়েছিলেন লিওনেল মেসি। কানে কানে কিছু বলেছিলেন? চোটের কারণে মেসি নিজে খেলতে না পারায় মাত্র ১৬ বছর এ বয়সী উইঙ্গারের কানে কি কোনো মন্ত্রণা দিয়েছিলেন? দল বিপদে পড়লে বুক চিতিয়ে লড়ো, এমন কোনো কথা! ওসাসুনার বিপক্ষে আজ সেই আনসু ফাতির কাছ থেকে কিন্তু এমন কিছুই দেখা গেল। গিনি-বিসাউয়ের এ ফুটবলার গোল পেলেও অবশ্য হাসিমুখে মাঠ ছাড়তে পারেননি। বার্সেলোনা তার গোলে সমতায় ফিরলেও যে জিততে পারেনি! ওসাসুনার সঙ্গে ২-২ গোলের ড্র নিয়ে মাঠ ছাড়তে হয়েছে চ্যাম্পিয়নদের।

ওসাসুনার মাঠে প্রথমার্ধের ১-০ গোলে পিছিয়ে ছিল বার্সা। প্রথমার্ধের শেষ দিকেই ফাতিকে গা গরম করতে দেখা গেছে ডাগআউটে। বোঝাই যাচ্ছিল, পরিবর্তন আসছে। কারণ, বার্সা ম্যাচের প্রথমার্ধে শুধু গোল হজম করেনি, রাফিনহা, আঁতোয়ান গ্রিজমান ও কার্লেস পেরেজদের নিয়ে গড়া আক্রমণভাগ এ সময় স্বাগতিকদের গোলপোস্ট তাক করে কোনো শটই নিতে পারেনি! ৪৫তম মিনিটে রক্ষণভাগ থেকে নেলসন সেমেদোকে তুলে ফাতিকে মাঠে নামান কোচ আর্নেস্তো ভালভার্দে। ফল মিলল হাতেনাতে দ্বিতীয়ার্ধের খেলার পাঁচ মিনিটের মাথায়। উচ্চতায় তাঁর চেয়ে বেশ উঁচু দুই ডিফেন্ডারের মাঝ থেকে লাফিয়ে হেডে সমতাসূচক গোলটি করে ফাতি। পেরেজের ক্রস ছিল এ গোলের উৎস।

লা লিগার ইতিহাসে তৃতীয় সর্বকনিষ্ঠ ফুটবলার হিসেবে গোল করল ফাতি (১৬ বছর ৩০৪দিন)। আর লা লিগায় বার্সার হয়ে সর্বকনিষ্ঠ গোলদাতাও ফাতি। তার গোলের ১৩ মিনিট পর আর্থারের করা গোলটির উৎসও ছিলেন পেরেজ। ২১ বছর বয়সী তরুণ এ ব্রাজিলিয়ানের পাস থেকে বাঁকানো শটে গোলটি করেন আর্থার। কিন্তু বার্সা এগিয়ে গিয়েও জয় নিয়ে মাঠ ছাড়তে পারেনি। ৮১ মিনিটে নিজেদের বক্সের মধ্যে ‘হ্যান্ডবল’ করে পেনাল্টির খেসারত গোনেন বার্সা ডিফেন্ডার জেরার্ড পিকে। স্পটকিক থেকে ঠান্ডা মাথায় গোল করে বার্সার পয়েন্ট কেড়ে নেন রবার্তো তোরেস। স্প্যানিশ এ মিডফিল্ডারই ৭ মিনিটের মাথায় বাঁ পায়ের দুর্দান্ত ভলিতে গোল করে এগিয়ে দিয়েছিলেন ওসাসুনাকে।

আগের ম্যাচে রিয়াল বেটিসের বিপক্ষে খেলানো একাদশই মাঠে নামিয়েছিলেন ভালভার্দে। প্রথমার্ধে ওসাসুনার রক্ষণে মোটেও ত্রাস সৃষ্টি করতে পারেনি বার্সার আক্রমণভাগ। উল্টো গোলরক্ষক আন্দ্রে টের স্টেগেনের দৃঢ়তায় এ সময় বিপদ থেকে বেঁচেছে তারা। ম্যাচের শেষ দিকে রবার্তো তোরেসের দুর্দান্ত একটি শট রুখে দেন টের স্টেগেন। আর বার্সার পেরেজ ওসাসুনা গোলরক্ষককে একা পেয়েও গোল করতে পারেননি। লিগে এ নিয়ে তিন ম্যাচে অপরাজিত রইল ওসাসুনা। আর বার্সা অ্যাথলেটিক বিলবাওয়ের বিপক্ষে হার দিয়ে শুরুর পর বেটিসের বিপক্ষে জিতলেও আজ পূর্ণ ৩ পয়েন্ট নিয়ে মাঠ ছাড়তে পারল না। বার্সার সান্ত্বনা শুধু এই, ফাতি পেশাদার ফুটবলে তার দ্বিতীয় ম্যাচেই গোল পেল। দেখাল বড় কিছু হয়ে ওঠার সম্ভাবনা।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে