সেঞ্চুরির পর ভূত ভর করে?, রোহিতকে তামিম

0
111
তামিম তাই রোহিতকে প্রশ্ন করেন, সেঞ্চুরির পরে কি তার মধ্যে ভূত-প্রেত ভর করে?

ওয়ানডে ক্যারিয়ারে তিনটি ডাবল সেঞ্চুরি রোহিত শর্মার নামের পাশে। ওয়ানডে ফরম্যাটের সর্বোচ্চ ইনিংস তার দখলে। অথচ রোহিত শর্মা খুবই ধীরে-সুস্থে ব্যাটিং শুরু করেন।

কিন্তু একবার সেঞ্চুরি হয়ে গেছে অন্য মানুষ হয়ে যান মিডল অর্ডার থেকে বিশ্বের সেরা বিধ্বংসী ওপেনার বনে যাওয়া রোহিত। তামিম তাই রোহিতকে প্রশ্ন করেন, সেঞ্চুরির পরে কি তার মধ্যে ভূত-প্রেত ভর করে?

সামাজিক মাধ্যমে করোনাকালে তামিমের সঙ্গে ওই লাইভে রোহিত শর্মা বলেন, ‘আগেই বললাম, ইনিংসের শুরুতে আমি কিছুটা নার্ভাস থাকি। একবার শতরান হয়ে যাওয়ার পরে তাই ব্যাটিংটা পুরোপুরি উপভোগ করা উচিত। ভয় চলে যায়। সেঞ্চুরি পাওয়ার পর তাই খেলাটা তোমার হাতে। ভুল না করলে তখন আর আউট করার সুযোগ থাকে না বোলারদের। এভাবেই ভাবি আমি।’

রোহিত জানান, ইনিংসের ৩০-৪০ ওভার পর্যন্ত তিনি তার সাধারণ খেলাটাই খেলেন। এরপর সেট হয়ে গেলে চেষ্টা করেন প্রায় প্রতি বলেই শট খেলতে। কোন বোলার কেমন বল করে বা করছে সেটাও ততক্ষণে জানা হয়ে যায় তার।

তবে সবসময় যে, ৩০-৪০ ওভার পরে শট খেলেন ব্যাপারটা তাও না। তার সঙ্গে যদি লোয়ার অর্ডারের ব্যাটসম্যানরা থাকেন তবে বুঝে শুনেই খেলেই। আর ক্রিজে মিডল অর্ডারের কোন সেট ব্যাটসম্যান থাকলে খুনে মেজাজ ধারণ করেন তিনি।

তবে রোহিত জানান, শুরুতে তিনি খুবই ভয়ে ভয়ে ইনিংস শুরু করেন। শেখর ধাওয়ানকে দিয়ে বেশি শট খেলান। তবে যখন তিনশ’ বা তার বেশি রান তাড়া করতে হয় তখন পরিকল্পনা খুবই সহজ। শুধু শেখর নয় তাকেও শট খেলতে হয়। তিনি শুধু চেষ্টা করেন বেশি ভুল না করতে।

রোহিত বলেন, ‘কেউ যদি দাবি করেন, তিনি নার্ভাস থাকেন না তাহলে তিনি মিথ্যা বলেন। প্রথম ম্যাচ খেলতে নামুক কিংবা তিনশ’ ম্যাচ নার্ভাসনেস থাকবেই।’ রোহিতের সঙ্গে তামিমের এই লাইভ আলাপে উঠে আসে ক্রিকেটের আরও নানান বিষয়। রোহিত জানান, তামিমের বড় ভাই নাফিস ইকবাল তার এবং তার স্ত্রীর ভালো বন্ধু। ২০১৮ আইপিএলের সময় মুম্বাইয়ে খেলা মুস্তাফিজের ম্যানেজার ছিলেন নাফিস। তখন থেকেই বন্ধুত্ব তাদের।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে