সেঞ্চুরির কথা বললেই আউট হয়ে যান সৌম্য

0
86
সৌম্য ও তামিম

ক্যারিয়ারের শুরুটা সৌম্য সরকারের ছিল দুর্দান্ত। একটা ম্যাচ খেলেই ২০১৫ বিশ্বকাপ দলে জায়গা পান সৌম্য।বিশ্বকাপে একটা ফিফটি পেলেও দলকে দারুণ শুরু এনে দিয়ে দলে জায়গা পাকা করে নেন। বিশ্বকাপের পরে ক্যারিয়ারের দুর্দান্ত সময়টা কাটান সৌম্য।

২০১৫ সালে পাকিস্তানের বিপক্ষে সেঞ্চুরি করেন। ভারতের বিপক্ষে সিরিজে ভালো খেলেন। ওই বছরই দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে ‍দুই ম্যাচে সেঞ্চুরি করার সুযোগ হাতছাড়া করেন। আবার ২০১৮ সালের ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরে দুটি সেঞ্চুরির সুযোগ নষ্ট করেন। ওই সেঞ্চুরি হাতছাড়া নিয়ে তামিম জানান, সেঞ্চুরির কথা বললেই আউট হয়ে যান সৌম্য।

দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে সিরিজ নির্ধারণী ম্যাচে চট্টগ্রামে ৯০ রানে আউট হন সৌম্য। ওই ইনিংসে ফিফটি করে ক্রিজে ছিলেন তামিম। জয়ের জন্য দলের রান দরকার ছিল অল্প। সঙ্গে সুযোগ ছিল দক্ষিণ আফ্রিকার মতো দলের বিপক্ষে ১০ উইকেটে জেতার। সৌম্যর কাছে গিয়ে তামিম বলেন তুই সেঞ্চুরি করতে চাস। তাহলে আমি ডিফেন্স করবো। সৌম্য হ্যাঁ বোধক উত্তর দিয়েও কাভারে খুব সহজ একটা ক্যাচ দিয়ে আউট হয়ে যান।

ওই সিরিজের দ্বিতীয় ম্যাচে সৌম্য ৮৮ রান করে অপরাজিত ছিলেন। জয়ের জন্য লক্ষ্য কম থাকায় সেঞ্চুরির চেষ্টা করতে পারেননি তিনি। তামিমের সঙ্গে ক্রিজে থাকা অবস্থায় একই ঘটনা ঘটে সৌম্যর ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে। সিরিজের দ্বিতীয় ম্যাচে ৭৩ রান করে আউট হন সৌম্য। তার ব্যাটিং দেখে মনে হচ্ছিল সেঞ্চুরির দিকেই যাচ্ছেন। কিন্তু তামিমকে রেখে সাজঘরে ফেরেন তিনি।

সিরিজের তৃতীয় ওয়ানডেতে সৌম্যর আগে ফিফটি তুলে নেন তামিম। এরপর হাত খুলে, ডাউন দ্য উইকেটে এসে শট খেলতে শুরু করেন সৌম্য। ফিফটি করে তামিমের রানকেও ছাড়িয়ে যান। সৌম্যর রান ৮০’র মতো হলে তামিমের রান ছিল ৭০। তারা আলোচনা করে নেন। তামিম এবারও জিজ্ঞেস করেন সৌম্যকে, তুই সেঞ্চুরি করতে চাস। সৌম্য হ্যাঁ বললে তাকে দেখে খেলতে বলেন। কিন্তু পরের বলেই তুলে খেলতে গিয়ে সীমানায় ক্যাচ দিয়ে ফেরেন সৌম্য।

বাঁ-হাতি ব্যাটসম্যান সৌম্য তাই বলেন,  তৃতীয়বার ওমন সুযোগ আসলে তামিমকে সেঞ্চুরি করার সুযোগ দেবেন তিনি। পরক্ষণেই বলেন, তার চেয়ে দু ‘জনই অপরাজিত থেকে শেষ করার চেষ্টা করবেন। সৌম্যর এই কথার সমর্থন করেন তামিম। সৌম্য মনে করেন, তার ৩০-৪০ রানের ইনিংসের কিছু ফিফটি হলে।সেঞ্চুরির সুযোগ থাকা ইনিংসে থেকে সেঞ্চুরি পেলে খারাপ সময়ে সবার সমর্থন পেত। এখন ওই ইনিংসগুলোর মর্ম বোঝেন তিনি। তামিমও না-কি সৌম্য-লিটনদের বলেছিলেন, এই ৩০-৪০ রানের ইনিংসের মর্ম তোরা পরে বুঝবি।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে