সীমান্তে বাসিন্দাদের সংঘর্ষ, টুইটারে পাল্টাপাল্টি মুখ্যমন্ত্রীদের

0
42
ভারতের উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় রাজ্য আসাম ও মিজোরামের সীমান্ত এলাকায় সংঘর্ষ হয়েছে। আসাম, ২৬ জুলাই। ছবি: এএনআই

এ সংঘর্ষের ঘটনায় আসামের ছয় পুলিশ নিহত হয়েছেন, রাজ্যটির মুখ্যমন্ত্রী হেমন্ত বিশ্ব শর্মা এমনটাই জানিয়েছেন বলে এনডিটিভির প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে। তবে এ বিষয়ে বিস্তারিত এখনো জানা যায়নি।

সীমান্ত এলাকায় সংঘর্ষের ঘটনায় টুইটারে বিরোধে জড়িয়েছেন আসাম ও মিজোরামের মুখ্যমন্ত্রীরাও। অমিত শাহকে ট্যাগ করে পাল্টাপাল্টি টুইট করেছেন তাঁরা। দুপুরে প্রথমে টুইট করেন মিজোরামের মুখ্যমন্ত্রী জোরামথাঙ্গা। এতে সংঘর্ষের একটি ভিডিও জুড়ে দেন তিনি। অমিত শাহকে ট্যাগ করে সংঘর্ষ অবিলম্বে বন্ধ করার উদ্যোগ নিতে আরজি জানান।

 

অপর একটি টুইটে তিনি ঘটনাস্থল থেকে ভাঙচুরের শিকার হয়ে ফেরা একটি সরকারি গাড়ির ভিডিও পোস্ট করেন। লিখেন, এ ধরনের সহিংসতা কীভাবে মেনে নেওয়া যায়?

এরপর পাল্টা টুইট করেন হেমন্ত বিশ্ব শর্মা। তিনিও সংঘর্ষের একটি ভিডিও পোস্ট করেন। মুখ্যমন্ত্রী জোরামথাঙ্গাকে ট্যাগ করে তিনি লিখেছেন, ‘বেসামরিক মানুষের মধ্যে সংঘর্ষ শেষ না হওয়ার আগে কোলাসিবের (মিজোরাম) এসপি আমাদের পোস্ট সরিয়ে নিতে বলেছেন। এমন পরিস্থিতিতে আমি কীভাবে সরকার চালাব? আশা করি, আপনি দ্রুত হস্তক্ষেপ করবেন।’

অপর এক টুইটে আসামের মুখ্যমন্ত্রী লেখেন, ‘মিজোরামের মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে আমি কথা বলেছি। আসাম দুই রাজ্যের সীমান্তে শান্তি মেনে চলার পক্ষে। আমি মিজোরামের রাজধানী আইজল সফরে যাওয়া ও শান্তিপূর্ণ আলোচনায় বসার আগ্রহের কথা জানিয়েছি।’

সব কটি টুইটে তাঁরা অমিত শাহ ও প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির দপ্তরের অফিশিয়াল টুইটার অ্যাকাউন্টকে ট্যাগ করেন। এনডিটিভির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, সীমান্তে সংঘর্ষের ঘটনায় অমিত শাহ দুই রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে ফোনে কথা বলেছেন। অবিলম্বে সংঘাত নিরসনে উদ্যোগ নেওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন। এরপরই দুই রাজ্যের পুলিশ ঘটনাস্থল ছেড়ে চলে আসে।

মিজোরামের তিন জেলা—আইজল, কোলাসিব ও মামিতের সঙ্গে আসামের চাঁচর, হাইলাকান্দি ও করিমগঞ্জ জেলার ১৬৪ কিলোমিটারের বেশি সীমান্ত রয়েছে। দীর্ঘদিন ধরে এ সীমান্তে বেশ কিছু জমি নিয়ে দুই রাজ্যের বিরোধ চলে আসছে। এসব জমির মালিকানা দাবি করে দুই রাজ্যের বাসিন্দারাই। এমনকি অন্য রাজ্যের বাসিন্দাদের সেসব জায়গায় অনুপ্রবেশকারী হিসেবে দেখা হয়।

গত মাসেও একবার এই দুই রাজ্যের সীমান্তে সংঘর্ষ হয়েছিল। এসব বিরোধ নিরসনে সীমান্ত কমিশন গঠন করেছে মিজোরাম সরকার। অন্যদিকে মিজোরামের পাশাপাশি মেঘালয় ও অরুণাচল প্রদেশের সঙ্গেও আসামের সীমান্ত নিয়ে বিরোধ রয়েছে।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে