সাবেক স্বামীর হাতে খুন হন সাভারের এনজিওকর্মী হাসি

0
327
হাসি আক্তার

টাকা না দেওয়ায় ইট দিয়ে মাথায় আঘাত করে এনজিওকর্মী হাসি আক্তারকে (২৪) হত্যা করে সাবেক স্বামী সোহেল রানা। ওই ঘটনার সাড়ে চার মাস পর গত রোববার র‌্যাব সোহেলকে কুমিল্লা থেকে গ্রেফতারের পর এ তথ্য বেরিয়ে এসেছে। গত ১ মে সাভারের আমিনবাজারের একটি ভাড়া বাসায় খুন হন হাসি।

সোমবার রাজধানীর কারওয়ান বাজারে সংবাদ সম্মেলনে র‌্যাব-৪-এর অধিনায়ক অতিরিক্ত ডিআইজি মোজাম্মেল হক জানান, চলতি বছরের জানুয়ারিতে পারিবারিকভাবে হাসির সঙ্গে সোহেল রানার বিয়ে হয়। বনিবনা না হওয়ায় চার মাসের মধ্যেই তাদের বিচ্ছেদ হয়। পরে হাসি একটি এনজিওতে চাকরি নিয়ে আমিনবাজারের শিবপুর গ্রামে ভাড়া বাড়িতে বসবাস শুরু করেন। ওই সময় সোহেল অফিসে আসা-যাওয়ার পথে এবং ভাড়া বাসায় গিয়ে নানাভাবে উত্ত্যক্ত করার পাশাপাশি হাসির কাছে টাকা দাবি করে।

র‌্যাব অধিনায়ক বলেন, গত ১ মে সকালে হাসির বাসায় জোর করে ঢুকে টাকা দাবি করে সোহেল। টাকা দিতে অস্বীকার করায় এ সময় হাসিকে এলোপাতাড়ি মারধর করে সোহেল। এতে চোখে এবং মাথায় গুরুতর আঘাত পেয়ে অজ্ঞান হয়ে যান হাসি। পরে খাটের নিচে থাকা ইট দিয়ে তার মাথায় আঘাত করে সোহেল। এতে হাসির মৃত্যু হয়েছে ভেবে আলমারির ড্রয়ার থেকে তিন ভরি স্বর্ণালঙ্কার ও ৩০ হাজার টাকা নিয়ে দরজা বন্ধ করে পালিয়ে যায় সোহেল। এর ছয় দিন পর হাসপাতালে লাইফ সাপোর্টে মারা যান হাসি।

র‌্যাব কর্মকর্তারা বলছেন, ওই ঘটনায় করা মামলা তুলে নিতে হাসির দরিদ্র পরিবারকে হুমকি দিয়ে আসছিল সোহেলের পরিবার। বিষয়টি জানতে পেরে ছায়াতদন্ত শুরু করে র‌্যাব। এর ধারাবাহিকতায় রোববার কুমিল্লা থেকে সোহেলকে গ্রেফতার করা হলে সে হত্যার কথা স্বীকার করে।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে