শ্রীমঙ্গলে বাড়ছে শীতের তীব্রতা

0
183
ফাইল ছবি

দুটি পাতা ও একটি কুঁড়ির ‘দেশ’ হিসেবে পরিচিত হাওর ও চা বাগানবেষ্টিত মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গলে বেড়েই চলেছে শীতের তীব্রতা।

ভোরবেলা ও সন্ধ্যার পর কনকনে ঠান্ডা বাতাসে কাবু হচ্ছেন সবাই। মাঝরাত থেকে সকাল পর্যন্ত মাঝারি ধরনের কুয়াশাও পড়ছে। বর্তমানে দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা বিরাজ করছে শীতের রাজ্য শ্রীমঙ্গলে।

ধূসর কুয়াশায় ঢাকা চা বাগান সকাল-সন্ধ্যা পাচ্ছে মায়াবী রূপ। এলাকার জলাশয়গুলো মুখর শীতের পাখির কলতানে। ডিসেম্বরের শুরুতে তাপমাত্রা নেমে গেছে ১১.৪ ডিগ্রি সেলসিয়াসে। গাছের পাতায় লেগেছে হলুদের আভা।

বুধবার শ্রীমঙ্গল উপজেলায় সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ১১.৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস। শ্রীমঙ্গল আবহাওয়া পর্যবেক্ষণ কেন্দ্র সকালে সর্বনিম্ন এই তাপমাত্রা রের্কড করে, যা ছিল সারাদেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা।

আবহাওয়া অফিস জানায়, শ্রীমঙ্গলে রেকর্ডকৃত ১১.৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রাই চলতি শীত মৌসুমে সারাদেশের মধ্যে সর্বনিম্ন।

এদিকে শীত বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে বিচিত্র হতে শুরু করেছে প্রকৃতির রূপ। চা বাগানের সারি সারি ছায়া গাছগুলো সকাল-সন্ধ্যা ঢাকা পড়ছে ধূসর কুয়াশায়।

শ্রীমঙ্গলের প্রসিদ্ধ পাখির অভয়ারণ্য বাইক্কা বিলসহ হাওর, বিল, জলাশয় ও চা বাগানের লেকগুলোয় আসতে শুরু করেছে অতিথি পাখি। প্রকৃতির এই রূপের সুধা পান করতে পর্যটকের ভিড়ও বাড়তে শুরু করেছে সবুজ-ঘন চা বাগানগুলোয়।

শ্রীমঙ্গল আবহাওয়া পর্যবেক্ষণ কেন্দ্রের পর্যবেক্ষক মো. মুজিবুর রহমান বলেন, চলতি শীত মৌসুমে এখন পর্যন্ত শ্রীমঙ্গলে দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে। আগামীতে শীত আরও বাড়তে পারে বলে জানান তিনি।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে