শিশুকে নগ্ন করে নির্যাতন, চাচার স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি

0
124
ভিডিও থেকে নেওয়া ছবি

হবিগঞ্জের নবীগঞ্জে পাঁচ বছর বয়সী শিশু জিসানকে নগ্ন করে নির্যাতনের ঘটনায় আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন চাচা স্বপন মিয়া (২৬)।

বুধবার রাতে হবিগঞ্জের অতিরিক্ত চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট শাহীনুর আক্তারের আদালতে ১৬৪ ধারায় এ জবানবন্দি রেকর্ড করা হয়। পরে রাতেই তাকে কারাগারে পাঠানো হয়। স্বপন মিয়া উপজেলার চরগাঁও গ্রামের মনাই মিয়ার ছেলে।

বৃহস্পতিবার বিকেলে বিষয়টি নিশ্চিত করেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ও নবীগঞ্জ থানার পরিদর্শক (তদন্ত) উত্তম কুমার দাস।

আদালতের বরাত দিয়ে তিনি জানান, স্বপন মিয়া ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে আদালতে জবানবন্দি দিয়েছেন। তিনি টাকার জন্য তার ভাতিজাকে নগ্ন করে ভিডিও ধারণ করে প্রবাসী মায়ের কাছে পাঠান।

নবীগঞ্জ পৌর এলাকার চরগাঁও গ্রামের সুফি মিয়ার সঙ্গে বিয়ে হয় সুমনা বেগমের। সুফি মিয়ার মৃত্যুর পর দুই শিশুসন্তানের ভবিষ্যতের কথা চিন্তা করে জীবিকার তাগিদে তিনি পাড়ি জমান সৌদি আরবে। আর শিশু দুটিকে রেখে যান দেবর স্বপন মিয়ার কাছে। সৌদি আরবে গিয়েও শান্তিতে থাকতে পারেননি তিনি। টাকার জন্য তার সন্তানকে নির্যাতন করতে থাকেন স্বপন মিয়া। সন্তানকে নির্যাতন থেকে বাঁচাতে সুমনা বেগম ধাপে ধাপে স্বপনের কাছে টাকা পাঠান; কিন্তু নির্যাতন থামেনি।

সম্প্রতি শিশু জিসানকে নগ্ন করে নির্যাতনের পর সে দৃশ্য ভিডিও করে টাকা চেয়ে পাঠানো হয় মায়ের কাছে। এ দৃশ্য সইতে না পেরে গত ২ নভেম্বর দেশে ছুটে আসেন মা সুমনা। মঙ্গলবার রাতে এ ঘটনায় সুমনা আক্তার বাদী হয়ে নবীগঞ্জ থানায় স্বপনকে একমাত্র আসামি করে মামলা করেন। পরে বুধবার সকালে পুলিশ অভিযান চালিয়ে বানিয়াচং উপজেলার খাগাউড়া এলাকা থেকে স্বপন মিয়াকে আটক করে।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে