রাজবন বিহারে মধুপূর্ণিমা উদযাপিত

0
891
বনভান্তের ছবির বাঁপাশে রাজবন বিহার অধ্যক্ষ শ্রীমৎ প্রজ্ঞালংকার মহাস্থবির ও ভিক্ষুসংঘ

রাঙ্গামাটি রাজবন বিহারে বৌদ্ধদের অন্যতম ধর্মীয় অনুষ্ঠান মধূপূর্ণিমা আজ উদযাপিত হয়েছে।

বুদ্ধের সময়ে পারুলিয়া বনে ভগবান বুদ্ধ অবস্থানকালে এক বানর বুদ্ধকে মধুদান করে। সেই পূণ্যফলে বানরটির পরবর্তীতে মৃত্যু হলে স্বর্গে গমন করে।সেই উদ্দেশ্যে বুদ্ধের অনুসারীরা ভাদ্র মাসের পূর্ণিমা তিথিতে মধূপূর্ণিমা উদযাপন করে থাকে।

সান্টু ত্রিপুরা, দিপান্বিতা চাকমা, পটন চাকমা, মিল্টন চাকমা।

বুদ্ধ সংগীতের মধ্য দিয়ে অনুষ্ঠানের সূচনা করা হয়। এতে রাজবন বিহারের ভিক্ষুসংঘ ও বিপুল সংখ্যক পূণ্যার্থি অংশ গ্রহন করে। নানা রকম দানীয় সামগ্রীসহ বুদ্ধপূজা, মধূদান, অষ্টপরিস্কারদান, সংঘদান, বুদ্ধমূর্তিদান, বিশ্বশান্তি প্যাগোডা’র উদ্দেশ্যে টাকা দানের মাধ্যমে বিশ্বের সকল প্রাণির হিতসুখ মঙ্গল সমৃদ্ধিও শান্তি কামনা করা হয়েছে।

গৌতম দেওয়ান, বৃষকেতু চাকমা, মনিস্বপন দেওয়ান

অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন রাজবন বিহার কমিটির সভাপতি গৌতম দেওয়ান, জেলাপরিষদ চেয়ারম্যান বৃষকেতু চাকমা, প্রাক্তন উপমন্ত্রী মনিস্বপন দেওয়ান। ভিক্ষুসংঘের মধ্যে দেশনা প্রদান করেন শ্রীমৎ জ্ঞানপ্রিয় মহাস্থবির ও বিহার অধ্যক্ষ শ্রীমৎ প্রজ্ঞালংকার মহাস্থবির ভান্তে।

বৃষকেতু চাকমা বলেন,‘বুদ্ধের নীতি আদর্শ পালন করলেই সমাজে, দেশে ও বিশ্বে শান্তি ফিরে আসবে।’

অপরদিকে মনিস্বপন দেওয়ান বলেন,‘ অনেকে মনে করে এবং ফেসবুকে লেখে বনভান্তে এমন একজন মহাপুরূষ চাকমা সমাজে জন্ম গ্রহন করেও কেন এত দুর্দশা? মূর্খরাই এসব লেখালেখি করে। ভগবান বুদ্ধ স্বয়ং তার জ্ঞাতিকুলকে রক্ষা করতে পারেননি। যে চর্তুরার্য্য সত্য জ্ঞান, আষ্ট অষ্টাঙ্গিক মার্গফলকে বিশ্বাস করে ও জ্ঞান উৎপন্ন করতে পারলেই তবে শান্তি আসবে। কর্মফলকে বিশ্বাস করে কর্মসম্পাদন করলেই তবে ফল লাভ হয়।’

তিনি আরো বলেন, ‘বনভান্তের মুখসৃত বাক্য সব কিছু বাস্তবায়িত হয়েছে- ত্রিপিক সংগ্রহ ও অনুবাদ করা হয়েছে, পালি কলেজ হয়েছে, লাইব্রেরী হয়েছে । বাকী রয়েছে মাত্র বিশ্বশান্তি প্যাগোডা- এই প্যাগোডা নির্মাণ করতে পারলে সমাজে দেশে ও বিশ্বে শান্তি চলে আসবে। আমরা সব দলের কথা শুনেছি,কাজ দেখেছি। একবার বনভান্তের কথা ধরে দেখি- ‘‘বিশ্ব শান্তি প্যাগোডা’’ নির্মাণে মনোযোগ দিই ও বেশি বেশি দান করি।

জ্ঞানপ্রিয় ভান্তে ও প্রজ্ঞালংকার ভান্তের মধুপূর্ণিমার তাৎপর্যসহ ধর্ম দেশনার মধ্য দিয়ে অনুষ্ঠানের সমাপ্তি করা হয়।

পূণ্যার্থীবৃন্দ

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে