মিথ্যা বলেছেন প্রযোজক, নায়িকার কথাও সত্য নয়

0
44
সংবাদ সম্মেলনে মাহিয়া মাহি ও প্রযোজক

আজ দেশের মাত্র ৮ হলে মুক্তি পেয়েছে সরকারি অনুদানে নির্মিত  ছবি ‘আশীর্বাদ’। মুক্তির আগে ছবিটির পরিচালক মোস্তাফিজুর রহমান, নায়ক রোশান ও নায়িকা মাহিয়া মাহির সঙ্গে এর সহ-প্রযোজকের সঙ্গে দ্বন্দ্ব প্রকাশ্যে আসে।

সংবাদ সম্মেলন করে এক পক্ষ আরেক পক্ষের বিরুদ্ধে অভিযোগ তোলে। তবে গতকাল তাদের সব পক্ষের মধ্যেই  দ্বন্দ্বের অবসান ঘটে।  বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির মধ্যস্থতায় মিটমাট হোন তারা। এফডিসিতে সংবাদ সম্মেলন করে জানান বিষয়টি। সংবাদ সম্মেলেন তারা বিভেদ ভুলে দর্শকদের সিনেমাটি দেখার আহ্বান জানালেন।

সংবাদ সম্মেলনের আগে এফডিসিতে চলচ্চিত্র পরিচালক সমিতি ও শিল্পী সমিতির নেতাদের সঙ্গে বৈঠক করেন তারা। সেখানেই মিমাংসা হয় তাদের। পরে সাংবাদিকদের সামনে  এসে সহ-প্রযোজক জেনিফার ফেরদৌস বলেন, ‘সবার সঙ্গে কথা বলে বুঝলাম, একজনের মাধ্যমে আমাদের কথাবার্তা উল্টাপাল্টাভাবে ছড়িয়েছে। যেটা হয়েছে, সেটা হয়ে গেছে। মাহি সংবাদ সম্মেলনে যা বলেছে, উত্তেজিত হয়ে বলেছে। ও আমার ছোট বোন। আমিও তিক্ততার মধ্যে অনেক কিছু বলেছি। ওর কথাও সত্য নয়, আমার কথাও সত্য নয়। আমাদের জন্য দোয়া করবেন। ২৬ আগস্ট মুক্তি পাচ্ছে। মাহি অনেক সুন্দর কাজ করেছে। রোশানের অভিনয় দুর্দান্ত হয়েছে।’

এ সময় মাাহিয়া মাহি বলেন, আমাদের মধ্যে ভুল বোঝাবুঝি হয়েছে। আমাদের ফেসবুকে একটা গ্রুপ থাকলে এমন হতো না। সিনেমায় আপুর যেমন টাকা আছে, আমরাও অ্যাক্টিং করেছি। এটা আমাদেরও সন্তান।

আমাকে নিয়ে অন্য রকমের কথা শুনছিলাম। আমারও মাথা খারাপ হয়ে গেছে। যে যাকে যা বলেছি, সব ভুয়া। আমি এখনো বলব, ভুল সময়ে সিনেমা রিলিজ হচ্ছে। সিনেমাটা হিট করার পেছনে অনেক কিছু করার ছিল। প্রচারণা দিয়ে একটা সিনেমা অনেক দূর নিয়ে যাওয়া সম্ভব। সবাই সিনেমাটা দেখতে যাবেন। সিনেমাটা ভালো হয়েছে। আমাদের জন্য দোয়া করবেন।’

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন ইলিয়াস কাঞ্চন, সোহানুর রহমান সোহান, মোস্তাফিজুর রহমান, জিয়াউল রোশানসহ আরও অনেকে।

উল্লেখ্য, এর  আগে ছবির পোস্টার নায়ক-নায়িকা ফেসবুকে শেয়ার না করায় তাদের ছাড়াই  ‘মিট দ্য প্রেস’ এর আয়োজন করেন ‘আশীর্বাদ’ ছবির সহ-প্রযোজক জেনিফার ফেরদৌস। ওই মিট দ্য প্রেসে শুটিংয়ের সময় নায়ক-নায়িকার অপেশাদার আচরণেরও অভিযোগ তোলেন তিনি। এরপর পাল্টা পাল্টি অভিযোগ ওঠে নায়ক-নায়িকা ও প্রযোজকের বিরুদ্ধে।

এরপর জেনিফারের অভিযোগ খণ্ডন করতে ‘আশীর্বাদ’ এর নায়ক জিয়াউল রোশান ও নায়িকা মাহিয়া মাহি সংবাদ সম্মেলন করেন। সেখানে মাহিয়া অভিযোগ করেন, ২০১৯-২০ অর্থবছরে ৬০ লাখ টাকা সরকারি অনুদান পাওয়া ছবিটির নির্মাণে ২৫ লাখের বেশি খরচ করেননি প্রযোজক। নিজের বাসা থেকে শাড়ি এনে প্রযোজক তাকে পরিয়েছেন। শুটিংয়ে শিল্পী ও কলাকুশলীদের খাবারও ঠিক মতো দেননি। পারিশ্রমিক কমিয়ে ছবিটি করলেও নূন্যতম সম্মান দেননি প্রযোজক। অনেকটা গোজামিল দিয়ে ছবির শুটিং শেষ করে মুক্তি দেওয়া হচ্ছে। মাহির এসব অভিযোগের পক্ষে সহমত পোষণ করেন ছবিটির নির্মাতা মোস্তাফিজুর রহমান মানিক। একসঙ্গে নানা অভিযোগ জানান নায়ক রোশানও।

পরে প্রযোজক মাহিয়া  মাহির ব্যক্তিগত বিষয়েও অনেক অশ্রাব্য ভাষায় মন্তব্য করেন প্রযোজক জেনিফার।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.