বড়াইগ্রামে পুলিশ কনস্টেবলের বিরুদ্ধে স্ত্রী হত্যার অভিযোগ

0
130

নাটোরের বড়াইগ্রামে মনিরুল ইসলাম নামে এক পুলিশ কনস্টেবলের বিরুদ্ধে স্ত্রী হত্যার অভিযোগে মামলা হয়েছে। শনিবার বড়াইগ্রাম থানায় মামলাটি করেন তার শ্বশুড় আবুল কাশেম। এর আগে গত শুক্রবার রাতে সিরাজগঞ্জের খাজা ইউনুস আলী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মনিরুলের স্ত্রী তাসলিমা খাতুনের (১৯) মৃত্যু হয়।

শনিবার উপজেলার জোয়াড়ী গ্রাম থেকে তার লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য পাঠিয়েছে পুলিশ। অভিযুক্ত মনিরুল ইসলাম চাঁপাইনবাবগঞ্জ মডেল থানায় কর্মরত।

তাসলিমার বাবা জানান, এক বছর আগে পারিবারিকভাবে মনিরুল ও তাসলিমার বিয়ে হয়। বিয়ের পর তসলিমাকে নিয়ে কর্মস্থল চাঁপাইনবাবগঞ্জে বসবাস শুরু করেন মনিরুল। বিয়ের সময় যৌতুক দাবী না করলেও পরে যৌতুকের জন্য বেপরোয়া হয়ে উঠে মনিরুল। তিনি টাকা দিতে না পারায় নির্যাতন শুরু হয় তাসলিমার উপর। এরমধ্যে তসলিমা অন্তঃসত্ত্বা হলে গত ২৩ আগস্ট ডাক্তার দেখানোর কথা বলে জোর করে চাঁপাইনবাবগঞ্জের শান্তির মোড় এলাকার একটি ক্লিনিকে গর্ভপাত করানো হয়। পরে তাসলিমাকে তাদের বাড়িতে রেখে গিয়ে যোগাযোগ বন্ধ করে দেয় মনিরুল।

তিনি আরও জানান, গত ৯ অক্টোবর তার ছেলে রবিউল করিম গিয়ে মনিরুলকে তাদের বাড়িতে নিয়ে যান। পরদিন সকালে মনিরুল কর্মস্থলে যাওয়ার পর তাসলিমাকে নিজ ঘরে অজ্ঞান অবস্থায় পাওয়া যায়। পরে তাকে স্থানীয় একটি ক্লিনিকে ভর্তি করা হয়। সেখানে অবস্থার অবনতি হলে সিরাজগঞ্জের খাজা ইউনুস আলী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। শুক্রবার সেখানেই তার মৃত্যু হয়।

এ ব্যাপারে অভিযুক্ত মনিরুল ইসলামের সঙ্গে মোবাইলে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ‘আমি স্যারের রুমে আছি পরে কথা বলছি।’ পরে তাকে একাধিকবার কল দেওয়া হলেও তিনি ফোন ধরেন নি।

বড়াইগ্রাম থানার ওসি দিলিপ কুমার দাস বলেন, লাশ ময়না তদন্তের জন্য নাটোর সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। ময়না তদন্তের প্রতিবেদন ও অভিযোগ তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে