প্রেমিকের সহযোগিতায় মাকে হত্যা, ২ তরুণীকে গণধোলাই

0
319
অভিযুক্ত ২ তরুণীকে থানায় নিয়ে যাচ্ছে পুলিশ । সংগৃহীত

প্রেমিকের সহযোগিতায় শিক্ষিকা মাকে খুন করার অভিযোগ উঠেছে দুই তরুণীর বিরুদ্ধে। শনিবার সকালে ভারতের কলকাতার রায়গঞ্জের গোয়ালপাড়ার পাঁচপুকুর এলাকায় সড়কের পাশ থেকে ওই শিক্ষিকার ক্ষতবিক্ষত লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। খবর সংবাদ প্রতিদিনের

এদিকে ঘটনাটি জানাজানি হওয়ার পর স্থানীয়রা ক্ষোভে ফুঁসে ওঠেন। অভিযুক্ত দুই তরুণীকে গণপিটুনি দেন তারা। খবের পেয়ে রায়গঞ্জ থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে ওই দুই তরুণীকে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে যায়।

নিহত ওই শিক্ষিকার নাম কল্পনা দে সরকার (৫৩)। তার বাড়ি রায়গঞ্জের দেবীনগর দেবপুরী এলাকায়। স্থানীয় পূর্ব কলেজপাড়া প্রাথমিক বিদ্যালয়ে প্রধান শিক্ষিকা ছিলেন তিনি।

স্থানীয়রা জানায়, ১৩ বছর আগে কল্পনার স্বামী রঞ্জিত রায় মারা যান। এরপর দুই মেয়েকে নিয়েই থাকতেন তিনি।

স্থানীয়দের দাবি, কল্পনার বড় মেয়ে মনা রায়গঞ্জের একটি কলেজের স্নাতকের প্রথম বর্ষের ছাত্রী। বছর দেড়েক আগে স্থানীয় একটি ছেলের সঙ্গে ওই তরুণীর প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। এরপর বিয়ে করার জন্য চাপ তৈরি করেন মনার প্রেমিক। তবে মেয়ের প্রেমিককে পছন্দ না হওয়ায় বিয়েতে বাধা দেন কল্পনা। তাতেই মায়ের সঙ্গে মনোমালিন্য তৈরি হয় মেয়ের।

স্থানীয়দের অভিযোগ, মনোমালিন্যের জেরে শুক্রবার রাতে প্রেমিকের পরামর্শে মাথায় আঘাত করে হত্যা করেন মাকে। এরপর বস্তার মধ্যে লাশ ঢুকিয়ে মোটরসাইকেলে নিয়ে সড়কের পাশে ফেলে দেন মনার প্রেমিক। পরে শনিবার সকালে কল্পনার লাশ পড়ে থাকতে দেখেন স্থানীয়রা।

পুলিশ সুপার সুমিত কুমার বলেন, লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। ঘটনায় জড়িত সন্দেহে দু’জনকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে