পার্বত্য অঞ্চলে অশান্তি নিরাপত্তাহীন অস্থিতিশীল পরিবেশ বিরাজ করছেঃ সন্তু লারমা

0
420
অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখছেন ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের অ্যাম্বাস্যাডর ও হেড অব ডেলিগেশন টু বাংলাদেশ রেনসি তিরিঙ্ক।

আজ রাঙ্গামাটি পর্যটন কমপ্লেক্স মিলনায়তনে তিন পার্বত্য জেলায় বাস্তবায়নের প্রক্রিয়াধীন ‘‘আওয়ার লাইভস, আওয়ার হেল্থ, আওয়ার ফিউচার” প্রকল্পের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের আয়োজন করে বাংলাদেশ নারী প্রগতি সংঘ।

অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন পার্বত্য চট্টগ্রাম আঞ্চলিক পরিষদের চেয়ারম্যান জ্যোতিরিন্দ্র বোধিপ্রিয়(সন্তু) লারমা । তিনি বলেন, ‘পার্বত্য অঞ্চলে মানুষের জীবন মান আরো সুন্দর আরো নিরাপদ ও নারী সমাজের অধিকার প্রতিষ্ঠার লক্ষ্য নিয়ে আমরা পার্বত্য শান্তিচুক্তি করেছি।পার্বত্য চুক্তি বাস্তবায়ন না হলে যে সম্ভাবনা নিয়ে প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হলেও কাঙ্খিত সফলতা আসবে না।তাই পার্বত্য চুক্তি বাস্তবায়ন হওয়া দরকার।’

তিনি আরো বলেন, ‘পার্বত্য অঞ্চলে অশান্তি, একটা নিরাপত্তাহীন অস্থিতিশীল পরিস্থিতির বাস্তবতা বিরাজ করছে। চুক্তি বাস্তবায়ন না হলে নারীদের কোন অধিকার প্রতিষ্ঠা হবে না।’

প্রদীপ জ্বালিয়ে প্রকল্পের উদ্বোধন করছেন অতিথিবৃন্দ।

গেস্ট অব অনার হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের অ্যাম্বাস্যাডর ও হেড অব ডেলিগেশন টু বাংলাদেশ রেনসি তিরিঙ্ক। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন বাংলাদেশ নারী প্রগতি সংঘের নির্বাহী পরিচালক রোকেয়া কবির।

বিশেষ অতিথি ছিলেন চাকমা সার্কেল চীফ ব্যারিস্টার দেবাশীষ রায়,রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান বৃষকেতু চাকমা।

বক্তব্য রাখেন রাঙ্গামাটি সিভিল সার্জন ডাঃ শহীদ তালুকদার, জেলা সমাজ সেবা কর্মকর্তা মোহাম্মদ ওমর ফারুখ, জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের সাবেক সদস্য নিরুপা দেওয়ান, সিএইচটি হেডম্যান নেটওয়ার্কের সহ-সভাপতি থোয়াই অং মারমা, সাপছড়ি ইউপি চেয়ারম্যান মৃনাল কান্তি চাকমা।

মূল প্রবন্ধ পাঠ করে শোনান নেডারল্যান্ড সিমাভির প্রকল্প ব্যবস্থাপক ঝিমনো ডুরান।অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন সিমাভির উপ পরিচালক আলবার্ট।

এ প্রকল্পের মাধ্যমে নারীর প্রতি সহিংসতা রোধ, নারীর ক্ষমতায়ন্, প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর্ ‍উন্নয়ন, নারী ও শিশুর স্বাস্থ্য সেবা উন্নয়নে কাজ করবে। প্রকল্পটি তিন পার্বত্য জেলায় ১০টি এনজিও সংস্থার মাধ্যমে ৫ বছরের জন্য বাস্তবায়ন করা হবে।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে