ঢাকায় থাকা আর্মেনীয় সম্প্রদায়ের শেষ ব্যক্তির মৃত্যু

0
166
মাইকেল জোসেফ মার্টিন

বাংলাদেশে বসবাসকারী সর্বশেষ আর্মেনীয় পরিবারের শেষ ব্যক্তিও মারা গেলেন। এর মধ্যদিয়ে এই দেশে সম্প্রদায়টির বাতি নিভে গেল চিরতরে।

গত ১১ এপ্রিল তার মৃত্যু হয় বলে শনিবার এক প্রতিবেদেনে জানিয়েছে বার্তা সংস্থা এএফপি।

প্রায় ৩০০ বছরের বাংলাদেশে আর্মেনীয়দের বসবাস।৩০ বছরের বেশি সময় ধরে পুরান ঢাকার আর্মেনিয়ান চার্চকে আগলে রেখেছিলেন মাইকেল জোসেফ মার্টিন। কানাডায় ৮৯ বছর বয়সে তার মৃত্যু হয়েছে।

১৭৮১ সালে ঢাকায় আর্মেনীয় সম্প্রদায়ের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ও পবিত্র চার্চ তৈরি হয়। ১৯৮৬ সালে  এই আর্মেনিয়ান চার্চ অব হলি রেজারেকশনের রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্ব নেন মার্টিন।

চার্চের তত্ত্বাবধায়ক আর্মিন আর্সেলিয়ানিয়ান বলেন, ঢাকায় চার্চের দেখাশুনা করতেন মার্টিন। গত ১১ এপ্রিল তার মৃত্যু হয়েছে।অনেকের আত্মত্যাগ আর ভালোবাসা ছাড়া ঢাকায় আর্মেনীয়দের ঐতিহ্য টিকে থাকতো না।

১৬ শতকের দিকে ঢাকায় এসে বসতি গড়েছিল আর্মেনীয়রা। এরপর ব্যবসা, আইন ও সরকারি কাজেও তাদের অংশগ্রহণ শুরু হয়।

ইতিহাস বলছে, ঢাকায় প্রথম তারা বসতি স্থাপন করেন তৎকালীন নগরী থেকে পাঁচ মাইল দূরে তেজগাঁও এলাকায়। সেখানে সুন্দর একটি গির্জা নির্মাণ করেন। পরে তারা আরমানিটোলা এবং নগরীর অন্যান্য স্থানে প্রাসাদোপম অনেক ভবন গড়ে তোলেন।

মার্টিন বাবার সঙ্গে ঢাকায় আসেন ১৯৪২ সালে। তার পূর্বপুরুষ ব্যবসায়ী ছিলেন।তার আর্মেনীয় নাম ছিল মাইকেল হোসেফে মার্টিরোসিয়ান। তিনি যে চাচা দেখাশুনা করতেন; সেখানে ৪০০ আর্মেনীয়র কবর ররেছে। ২০০৬ সালে মারা যাওয়া তার স্ত্রী ভেরোনিকা মার্টিনকেও সেখানে সমাহিত করা হয়।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে