‘জিনের রানী’ এখন পুলিশের হাতে

0
340
গ্রেফতার শাবলী বেগম

বগুড়ার গাবতলীতে শাবলী বেগম (২৫) নামে কথিত জিনের রানীকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। তিনি বগুড়া সদরের এরুলিয়া গ্রামের আতাউর রহমানের স্ত্রী।

মঙ্গলবার দুপুরে তাকে গাবতলী উপজেলার রামেশ্বরপুর এলাকা থেকে গ্রেফতার করা হয়।

পুলিশ জানায়, সদর উপজেলার লাহিরীপাড়া ইউনিয়নের কেরুলিয়া গ্রামের আতাউর রহমানের স্ত্রী শাবলী বেগম গত ১১ আগস্ট গাবতলীর রামেশ্বরপুর ইউনিয়নের তেজঁপাড়া গ্রামের জাকির হোসেনের বাড়িতে যান। এরপর জাকির হোসেনের স্ত্রী রঞ্জনা বেগমকে জিনের কাছ থেকে বিপুল পরিমাণ টাকা পাইয়ে দেয়ার কথা বলে কয়েক দফায় ১ লাখ ৭০ হাজার টাকা হাতিয়ে নেন। গত ২৭ আগস্ট শাবলী বেগম আবারও রঞ্জনার বাড়িতে যান এবং কাপড়ে মোড়ানো নকল টাকা, থলিতে স্বর্ণের গহনা আছে বলে রঞ্জনা বেগমের ঘরে রক্ষিত বাক্সে রেখে দিয়ে বলেন, ‘১৫ দিনের আগে এই বাক্স খুলবি না। এই ১৫ দিনের মধ্যে তোর বাক্স টাকা আর সোনা দিয়ে ভরে উঠবে।’

পরবর্তীতে রঞ্জনা বেগম ১৬ দিনের মাথায় মঙ্গলবার তার বাক্স খুলে থলে বের করে দেখেন কাগজ কেটে টাকার বান্ডিল এবং পাথরের ছোট ছোট টুকরা রাখা হয়েছে থলের মধ্যে। পরে রঞ্জনা বেগম সুকৌশলে শাবলী বেগমকে ফোনে বলেন ‘আমার বাক্স অর্থ-সম্পদ দিয়ে ভরে গেছে।’ এ কথা বলে তিনি শাবলীকে বাড়িতে ডেকে নিয়ে আসেন। এ সময় গ্রামবাসী শাবলী বেগমকে আটক করে করে ৯৯৯ নম্বরে ফোন দেন। সংবাদ পেয়ে গাবতলী থানা পুলিশ শাবলী বেগমকে আটক করে থানায় নিয়ে যায়। এ ঘটনায় ভুক্তভোগী রঞ্জনা বেগম বাদী হয়ে শাবলী বেগমের বিরুদ্ধে থানায় প্রতারণা ও বিশ্বাস ভঙ্গের অভিযোগে মামলা দায়ের করেছেন।

স্থানীয়রা জানান, শাবলী বেগম নিজেকে জিনের রানী পরিচয় দিয়ে অভিনব কায়দায় মোবাইল ফোনে গ্রামাঞ্চলের সহজ-সরল মানুষদের সঙ্গে প্রতারণা করে টাকা হাতিয়ে নিতেন।

গাবতলী সার্কেলের সহকারী পুলিশ সুপার সাবিনা আক্তার জানান, বিভিন্ন সময় প্রতারণার মাধ্যমে অনেকের কাছ থেকে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে। এমন অভিযোগের সত্যতা পেয়ে মঙ্গলবার দুপুরে তাকে গ্রেফতার করা হয়।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে