চলো যায় মুনলাই

0
540
দূর পাহাড় থেকে দেখা মেঘে ঢাকা মুনলাই পাড়া।

শুরুতে পুরোপুরি বিষয়টা বোঝা যায়নি। ভাতঘুম থেকে সন্ধ্যায় উঠে কাঠের বারান্দায় একটা চেয়ারে বসে পাখির কিচিরমিচির, তক্ষকের টক টক শুনে আনমনা লাগছে, তখন এলেন লাল নুন বম। ‘আপনারা ঢাকা থেকে এসেছেন? এটা আমার বাড়ি।’ তাঁর এ কথায় ‘কমিউনিটি বেইজড ট্যুরিজম’ বিষয়টা অনেকখানি খোলাসা হলো।

পাহাড়ি সেই বাড়ি আমাদের তিনজনের সে রাতের ঠিকানা। রুমা বাজার থেকে তিন কিলোমিটার চড়াই-উতরাই পথ পেরিয়ে ২ সেপ্টেম্বর বিকেলে পৌঁছেছিলাম মুনলাই পাড়ায়। বগা লেক আর কেওক্রাডং যাওয়ার পথে এটি একটি বম পাড়া। বম সম্প্রদায়ের ৫৪টি পরিবারের বসবাস এখানে।

বান্দরবানের পাহাড়ে পাহাড়ে ক্ষুদ্র জাতিগোষ্ঠীর যে বসতি বা পাড়া চোখে পড়ে, মুনলাই পাড়া সেগুলো থেকে ব্যতিক্রম। পাহাড়ি রাস্তার দুই ধারে নানা রকম রঙিন ফুলের গাছ, ঝকঝকে ছোট ছোট বাড়ি, যেগুলো স্বাভাবিকভাবেই মাচার ওপর। কয়েকটি ঘর রঙিন টিনে ছাওয়া। মেঝেগুলো কাঠের।

বম সম্প্রদায়ের এক নারী কাপড় বুনছেন।

লাল নুন বমের কথায় আবার ফিরে যাই। সৌরবিদ্যুতের বাতি জ্বলছে কি না, ছোট ছোট টেবিল ফ্যান ঘুরছে কি না জিজ্ঞেস করলেন। ‘জানালাগুলো আটকে দেবেন, মশা আসতে পারবে না। কোনো সমস্যা হলে আমাকে বলবেন।’ লাল নুন বমের কথায় মনে হলো যেন কুটুমবাড়ি বেড়াতে এসেছি। আমাদের জন্য লম্বাটে যে ঘর, তার সামনের ছোট ঘরেই থাকেন লাল নুন আর তাঁর স্ত্রী। তাঁদের তিন ছেলে অন্যত্র থাকেন কাজ আর পড়াশোনার সূত্রে।

দেশি খাবারের স্বাদ পাওয়া গেল মুনলাই পাড়ায়

কমিউনিটি বেইজড ট্যুরিজমের ধারণাটাই এমন। ঢাকাতে তা জানিয়েছিলেন গাজীপুরের রিসোর্ট বেসক্যাম্প বাংলাদেশ লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক তামজিদ সিদ্দিক। বেসক্যাম্পের একটি উদ্যোগ ‘মুনলাই কমিউনিটি বেইজড ট্যুরিজম’। বলেছিলেন, ‘বমদের এই পাড়াতে আপনি তাঁদের বাড়িতে থাকবেন। তাঁদের জীবনযাপন বুঝতে পারবেন। তবে থাকার ব্যাপারটা হবে আরামদায়ক।’ অভিজ্ঞতাও তা বলল। কাঠের মেঝের ওপর পাঁচটি বিছানা পাতা। পাশেই স্নানঘর, সেটায় আধুনিক ব্যবস্থা, কিন্তু আমেজটা পাহাড়ি। থাকার জন্য পর্যটক যে ভাড়াটা দেবেন দিনের হিসাবে, তার ভাগ পাবেন বাড়ির বাড়ির মালিক। অন্যান্য আয়ের অংশও পান স্থানীয়রা। এ উদ্যোগে প্রশাসনিক সহায়তা করছে পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ড।

মুনলাই কমিউনিটি বেইজড ট্যুরিজম শুরু হয়েছে বছর দুয়েক আগে। এখন পর্যন্ত দুটি বাড়িতে থাকার ব্যবস্থা। ২০-২৫ জন পর্যটক থাকতে পারেন এখন। আবার তাঁবু টানিয়ে ৪০ জনের থাকার ব্যবস্থাও রয়েছে। এর পাশাপাশি ট্রেকিং, ৫৫০ ফুট দীর্ঘ জিপলাইন,  নদী ও খালে কায়াকিং, এ গাছ থেকে ও গাছে চড়ার খেলাও (ট্রি টপ অ্যাকটিভিটি) খেলা যাবে।

মুনলাই পাড়ার পরিচ্ছন্নতা চোখে পড়ার মতো

গাড়িতে করে বিকেল চারটার দিকে মুনলাই পাড়া পৌঁছেছিলাম আমরা। সেদিন ছিল টিপটিপে বৃষ্টি। রুমা বাজার থেকে আমাদের নিয়ে যান সৌভিক বড়ুয়া। লাল নুন বমের বাড়িতে বাক্সপেটরা রাখতেই খিদের কথা মনে পড়ল। রাস্তার ওপারে একটু হেঁটে কমিউনিটি বেইজড ট্যুরিজমের অফিস কাম খাবার ঘরে গেলাম। বারান্দায় কাঠের বেঞ্চ পাতা, তার সামনেই দিগন্তজোড়া পাহাড় আর মেঘ। নিচে যেন অতল সবুজ।

খাবার পাতে সে বেলা পড়ল ভাত, মাছ, সবজি, সালাদ, বাঁশে রান্না মুরগির পদ। সঙ্গে আচার। রান্না দেশি, তবে পরিবেশনে আধুনিক কায়দা। এখানকার শেফ শাহীন হোসেনের রান্নার প্রশংসা করতেই হলো। শাহীন জানালেন, অতিথি চাইলে এখানকার স্থানীয়দের রান্না করা পাহাড়ি খাবারও পরিবেশন করা হয়।

এমন বাড়িতেইে পর্যটকদের থাকার ব্যবস্থা

বান্দরবানের আকাশ সবচেয়ে স্বচ্ছ মনে হয় সব সময়। এবারও তা বুঝতে পারলাম। মেঘের আনাগোনার মধ্যেও মনে হলো অনেক স্বচ্ছ আকাশ। রাতে অসংখ্য তারা সেখানে! যান্ত্রিকতা নেই কোনো দিকে, দিনের সবুজ রাতে আরও গাঢ়, রাতজাগা পাখি, পোকামাকড়ের আওয়াজ, তক্ষকের ডাক আর মাথার ওপর তারাভরা আকাশ। এই জীবনে এর থেকে আর বেশি যেন পাওয়ার নেই।

ওদিকে বারবিকিউ আর ক্যাম্পফায়ারের আয়োজন করেছেন শাহীন আর সৌভিক। আগুনের পাশে বম যুবক থমাস এডিসন বম গিটার ধরেছেন। একটা পরিচিত গানের পর তাঁকে বলা হলো বম ভাষার গান গাইতে। গাইলেন তিনি। ক্যাম্পফায়ারের আগুন নিভে আসছে, বারবিকিউ শেষ পর্যায়ে। তার একটু পরই রাতের খাবার।

সময় শেষ হয় দ্রুতই। আবার নেমে চলা নিচে—নগরে, কাজে। সহজ থেকে জটিল জীবনযাপনের দিকে। তবু মাঝেমধ্যে মনের লাগি মুনলাই পাড়ার মতো জায়গা এক, দুই বা তিন দিনের জন্য টানে বৈকি।

মুনলাই পাড়া থেকে নানা গন্তব্যের দিকনির্দেশনা

যেভাবে যাবেন

নিজের গাড়ি, ভাড়া গাড়ি বা বাসে ঢাকা থেকে বান্দরবান। বান্দরবান থেকে বাস যায় রুমা বাজার পর্যন্ত, ভাড়া ১১০ টাকা। এ ছাড়া চান্দের গাড়ি (ফোর–হুইল ড্রাইভ) ভাড়া (১২ জনের জন্য ৩,৫০০ টাকা) করেও যাওয়া যাবে। দূরত্ব ৫০ কিলোমিটার, সময় লাগবে আড়াই থেকে তিন ঘণ্টা। রুমা বাজারের আগে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর গ্যারিসনে প্রথম দফা নাম লিখিয়ে নিতে হবে। রুমা বাজারের আর্মি ক্যাম্পে আরেক দফা নাম লিখিয়ে অনুমতি নিতে হবে (কমিউনিটি বেইজড ট্যুরিজমের মাধ্যমে গেলে আগে থেকেই তারা অনুমতির প্রক্রিয়া শুরু করে দেয়)। সঙ্গে জাতীয় পরিচয়পত্র, পাসাপোর্ট বা জন্মনিবন্ধন সনদ রাখতে হবে। রুমা বাজার থেকে বগা লেক ও কেওক্রাডং সড়কে তিন কিলোমিটার পর মুনলাই পাড়া। এটুকু পথে পাহাড়ে বেশ চড়াই–উতরাই রয়েছে। রুমা বাজার থেকে চান্দের গাড়ি ভাড়া করে ১৭ কিলোমিটার দূরের বগা লেক যেতে পারবেন, ভাড়া ২৭০০ টাকা। কেওক্রাডং গাড়ি যাবে না। তবে বাইক যায় রুমা বাজার থেকে, ভাড়া ২৫০০ টাকা।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে