খেলার মাঠে হামলা, শিক্ষকসহ আহত ৭

0
343
খেলার মাঠে হামলায় আহত বেশ কয়েকজন। ফরিদপুর, ১৫ সেপ্টেম্বর।

ফরিদপুরে খেলার মাঠে দেশীয় অস্ত্র নিয়ে হামলার ঘটনা ঘটেছে। এতে এক ক্রীড়া শিক্ষকসহ আহত হয়েছেন সাতজন। আজ রোববার বেলা ১১টার দিকে ফরিদপুর জিলা স্কুলের মাঠে এ ঘটনা ঘটে।

আহত ব্যক্তিরা হলেন নগরকান্দা উপজেলার এম এন একাডেমির ক্রীড়া শিক্ষক আবু ইউনুস মিয়া (৩৯), একই বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী পারভেজ, আরাফাত, নাদিম, সাহেব, আল হামজা ও বিধান। আহত শিক্ষার্থীরা ওই বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির ছাত্র ও ফুটবল দলের সদস্য।

প্রশাসন ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, ফরিদপুরের জিলা স্কুলের মাঠে ‘৪৮তম বাংলাদেশ জাতীয় স্কুল, মাদ্রাসা ও কারিগরি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের গ্রীষ্মকালীন ক্রীড়া প্রতিযোগিতা’র উপজেলা পর্যায়ের খেলা চলছিল। গতকাল শনিবার এই প্রতিযোগিতা শুরু হয়েছে। শেষ হওয়ার কথা সোমবার। শনিবার ওই মাঠে নগরকান্দা ও ফরিদপুর সদরের মধ্যে খেলা অনুষ্ঠিত হয়। নগরকান্দার এম এন একাডেমির কাছে ফরিদপুর সদরের ময়েজউদ্দিন উচ্চবিদ্যালয় ফুটবল দল ১-০ গোলে হেরে যায়। আজ নগরকান্দার সঙ্গে সদরপুর উপজেলার খেলা অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিল। তবে এ খেলা শুরু হওয়ার আগে বেলা ১১টার দিকে নগরকান্দা উপজেলা দলের ওপর হামলার ঘটনা ঘটে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, নগরকান্দা ফুটবল দলের সদস্যরা মাঠের পূর্ব পাশে পোশাক পরিবর্তন করে ওয়ার্মআপ করছিল। এ সময় রামদা, রডসহ বিভিন্ন দেশীয় ধারালো অস্ত্র নিয়ে তাদের ওপর হামলা চালানো হয়। এতে নগরকান্দার ক্রীড়া শিক্ষক ও ফুটবল দলের ছয় খেলোয়াড় আহত হয়েছে। আহত ব্যক্তিদের দ্রুত ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। বর্তমানে শিক্ষকসহ আহত শিক্ষার্থীরা ওই হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

আহত ক্রীড়া শিক্ষক আবু ইউনুস মিয়া অভিযোগ করেন, শনিবার নগরকান্দার কাছে হেরে যায় ফরিদপুর সদরের ময়েজউদ্দিন উচ্চবিদ্যালয়। এই হার মানতে না পেরে প্রতিশোধ নেওয়ার জন্য পরিকল্পিতভাবে ময়েজউদ্দিন উচ্চবিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা হামলা চালিয়েছে।

ফরিদপুরের জেলা প্রশাসক অতুল সরকার বলেন, খেলার মাঠে এ হামলার খবর পাওয়ামাত্রই মাঠে পুলিশ পাঠানো হয়। হামলাকারী সন্দেহে এরই মধ্যে একজনকে আটক করা হয়েছে। যারা এ হামলার সঙ্গে জড়িত, তাদের চিহ্নিত করা হয়েছে এবং তাদের বিদ্যালয় থেকে বহিষ্কার করার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। এ ঘটনায় নগরকান্দা এম এন একাডেমির ক্রীড়া শিক্ষককে মামলা করার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে।

ময়েজউদ্দিন উচ্চবিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক আবুল কালাম বলেন, যে সময়ে খেলার মাঠে হামলার ঘটনা ঘটেছে, সে সময়ে তিনি বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের নিয়ে পাঠদানে ব্যস্ত ছিলেন। তাঁর বিদ্যালয়ের কোনো শিক্ষার্থী এ হামলার সঙ্গে যদি জড়িত হয়ে থাকে, তবে তাদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

ফরিদপুর জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা পরিমল চন্দ্র মণ্ডল বলেন, ইতিমধ্যে হামলাকারী হিসেবে ময়েজউদ্দিন উচ্চবিদ্যালয়ের চার শিক্ষার্থীকে শনাক্ত করা হয়েছে। ওই বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষকের কাছে সেই তালিকা পাঠিয়ে তাদের বিদ্যালয় থেকে বহিষ্কার করতে বলা হয়েছে। তিনি আরও বলেন, এ হামলার ঘটনার পর নগরকান্দার সঙ্গে সদরপুরের খেলাটি স্থগিত করা হয়েছে। স্থগিত হওয়া খেলাটি সোমবার অনুষ্ঠিত হবে।

ফরিদপুর কোতোয়ালি থানার উপপরিদর্শক বিল্লাল হোসেন বলেন, এ ঘটনায় একজনকে আটক করা হয়েছে। ঘটনাস্থল থেকে পাইপের মাথায় চায়নিজ কুড়াল বাঁধা অবস্থায় একটি অস্ত্র জব্দ করা হয়েছে।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে