কম্বোডিয়ার বিপক্ষে বাংলাদেশের জয়ের হ্যাটট্রিক

0
65
বাংলাদেশের জয়সূচক গোলের পর রাকিব হোসেনের উচ্ছ্বাস, ছবি: বাফুফে

পুরো ম্যাচে অসাধারণ খেলেছেন মতিন মিয়া

পুরো ম্যাচে অসাধারণ খেলেছেন মতিন মিয়া
ছবি: বাফুফে

আজকের ফিফা প্রীতি ম্যাচটি নমপেনে হলেও ভেন্যু ছিল মোরোদোক টেকো ন্যাশনাল স্টেডিয়াম। ম্যাচের শুরু থেকে পাল্টাপাল্টি আক্রমণে জমে ওঠে ম্যাচ। স্বাগতিক কম্বোডিয়া গোলের খোঁজে বারবারই আসতে চাইছিল বাংলাদেশের বক্সে। দুই–তিনবার গোলের সুযোগও তারা তৈরি করেছিল। বাংলাদেশও সুযোগ পেয়েই উঠেছে প্রতি–আক্রমণে।

১৫ মিনিটে বিশ্বনাথের লম্বা থ্রোয়ে অধিনায়ক জামাল ভূঁইয়া প্রায় ফাঁকায় বল পেয়ে যান। কিন্তু বলটা জালে রাখতে পারেননি। তাঁর টোকা চলে যায় পোস্টের বাইরে দিয়ে। এরপরই পরিকল্পিত আক্রমণে গোল পেয়েছে বাংলাদেশ। প্রায় মাঝমাঠ থেকে বল নিয়ে দ্রুতগতিতে মতিন মিয়া এগিয়ে যান কম্বোডিয়ার বক্সের দিকে। অনেকটা দূর এগিয়ে তিনি বল বাড়ান রাকিবকে উদ্দেশ করে। রাকিবও সঙ্গে থাকা ডিফেন্ডারকে ছিটকে বলের নিয়ন্ত্রণ নিয়ে নেন। অসাধারণ প্লেসিংয়ে বক্সের প্রায় ওপর থেকে ২৩ মিনিটে ১–০ করেন রাকিব।

গোলের পর রাকিবকে নিয়ে বেঞ্চের খেলোয়াড়দের উচ্ছ্বাস

গোলের পর রাকিবকে নিয়ে বেঞ্চের খেলোয়াড়দের উচ্ছ্বাস
ছবি: বাফুফে

গোল শোধের অনেক চেষ্টাই করেছে কম্বোডিয়া। কিন্তু বাংলাদেশের রক্ষণ ও গোলকিপার আনিসুর রহমান ছিলেন সতর্ক। অন্যদিকে দ্বিতীয় গোলের খোঁজে আক্রমণে যায় বাংলাদেশও। ৭৬ মিনিটে বাংলাদেশ দ্বিতীয় গোলটি পেয়েও যেত পারত। মতিন মিয়ার দুর্দান্ত শট ফিরে এসেছে ক্রসবারে লেগে।

২০১৯ সালের মতো আজকের ম্যাচের আগেও বাংলাদেশ ফিফা র‌্যাঙ্কিংয়ের ১৯২তম স্থানে। ২০১৯ সালে কম্বোডিয়া ছিল ১৭২ নম্বরে, বর্তমানে ১৭৪ নম্বরে।

কম্বোডিয়ার গ্যালারিতে আসা বাংলদেশি সমর্থকদের অভিনন্দনের জবাব দিচ্ছেন ফুটবলাররা

কম্বোডিয়ার গ্যালারিতে আসা বাংলদেশি সমর্থকদের অভিনন্দনের জবাব দিচ্ছেন ফুটবলাররা
ছবি: বাফুফে

আগের দিন সংবাদ সম্মেলনে র‌্যাঙ্কিংকে খুব একটা পাত্তা দেননি বাংলাদেশের অধিনায়ক জামাল ভূঁইয়া। তিনি বলেছিলেন, ‘আমাদের মতোই আরেকটি দলের সঙ্গে ভালো একটা ম্যাচ খেলতে যাচ্ছি। ওরা তো আমাদের চেয়ে খুব একটা এগিয়ে নেই, তাই আমি বলব ৫০-৫০ একটা ম্যাচ হবে। হ্যাঁ, র‌্যাঙ্কিংয়ে ওরা এগিয়ে আছে। তবু আমি এটাকে ৫০-৫০ ম্যাচই বলব।’ জামাল এর সঙ্গে যোগ করেছিলেন, ‘সুযোগগুলো কাজে লাগিয়ে গোল করতে হবে আমাদের। কম্বোডিয়া দলটি বেশ উদ্যমী ও আত্মবিশ্বাসী। আমরা চেষ্টা করব ওদের আত্মবিশ্বাস নষ্ট করতে।’

বাংলাদেশের কোচ হিসেবে আগের ছয় ম্যাচে চারটি হেরেছিলেন হাভিয়ের কাবরেরা। দুটি হয়েছে ড্র। অবশেষে সপ্তম ম্যাচে এসে জয় পেলেন তরুণ স্প্যানিশ কোচ।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.