ইবির ছয় ছাত্রলীগ নেতার বিরুদ্ধে চাঁদাবাজি মামলা, প্রতিবাদে প্রধান ফটকে তালা

0
347
প্রধান ফটকে তালা ঝুলিয়ে ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ মিছিল করেছে ছাত্রলীগের বিদ্রোহী গ্রুপ।

ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সাবেক ও বর্তমান ছয় নেতার নামে ঝিনাইদহ আদালতে চাঁদাবাজির মামলা করেছেন বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক শামসুজ্জামান তুহিন।মঙ্গলবার দুপুরে ঝিনাইদহ আদালতে মামলাটি দায়ের করা হয়।

মামলার প্রতিবাদে এদিন বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটকে তালা ঝুলিয়ে ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ মিছিল করেছে ছাত্রলীগের বিদ্রোহী গ্রুপ।

মামলার বাদী শামসুজ্জামান তুহিন বলেন, গত রোববার বিকেলে তিনি ক্যাম্পাস-পার্শ্ববর্তী শেখপাড়া বাজারের হাজি মার্কেটের সামনে বসে ছিলেন। তখন ইবি ছাত্রলীগের সাবেক ছয় নেতা এসে তার মাথায় পিস্তল ঠেকিয়ে পাঁচ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করে। এ সময় প্রাণভয়ে তিনি তাদের ৫০ হাজার টাকা তাৎক্ষণিক জোগাড় করে দেন। বাকি টাকা না দিলে জীবনের হুমকি দেয় তারা।

মামলায় ছয়জনের নাম উল্লেখসহ বেশ কয়েকজনকে অজ্ঞাতপরিচয় আসামি করা হয়েছে বলে তুহিন জানান।

আসামিরা হলো- বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সাবেক সহসভাপতি আলামিন জোয়ার্দ্দার, সাবেক ছাত্রলীগ নেতা মোহাম্মাদ আলী শিমুল, নাজমুল, সাবেক সাধারণ সম্পাদক জুয়েল রানা হালিম, সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক শিশির ইসলাম বাবু এবং সাবেক ছাত্রবিষয়ক সম্পাদক মিজানুর রহমান লালন। এর মধ্যে তিনজন ক্যাম্পাসে ছাত্রলীগের বিদ্রোহী গ্রুপের নেতৃত্ব দিচ্ছেন বলে জানা গেছে।

ক্যাম্পাস সূত্রে জানা যায়, শামসুজ্জামান তুহিন বিশ্ববিদ্যালয়ের ব্যবসায় প্রশাসন অনুষদের ঊর্ধ্বমুখী সম্প্রসারণের উন্নয়নমূলক কাজ দেখাশোনা করছেন। এ কাজটি করছে সনেপ ইন্টারন্যাশনাল নামের একটি প্রতিষ্ঠান। আসামিরা এ কাজেরই চাঁদা দাবি করেছে বলে তুহিন জানান।

এদিকে মামলার খবরে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটকে তালা দিয়ে বিক্ষোভ মিছিল করেন ছাত্রলীগের বিদ্রোহী গ্রুপের কর্মীরা। পরে উপাচার্য অধ্যাপক হারুন-উর-রশিদ আসকারীর সঙ্গে তার কার্যালয়ে সাক্ষাৎ করেন। এ সময় উপাচার্য তাদের বলেন, ‘ক্যাম্পাসের অভ্যন্তরীণ কোনো উন্নয়নমূলক কাজে যদি কেউ চাঁদা দাবি করে, তাহলে অবশ্যই আগে কর্তৃপক্ষকে জানাতে হবে। ক্যাম্পাসের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে মামলা হলে বিষয়টি আমরা দেখব।’

মামলার আসামি ছাত্রলীগের সাবেক কমিটির ছাত্রবিষয়ক সম্পাদক মিজানুর রহমান লালন বলেন, মামলার অভিযোগ সম্পূর্ণ মিথ্যা ও ভিত্তিহীন। প্রক্টর অপসারণের আন্দোলন করায় এ মামলা করানো হয়েছে।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে