ইনামুল হকের জন্য আগল ভাঙলেন শিল্পীরা

0
90
নাট্যকার ইনামুল হকের প্রথম প্রয়াণদিবস উপলক্ষে

হৃদি হক বলেন, ‘নাট্যাঙ্গনে এমন ঘটনা তেমন ঘটে না। আমরা একেক নাট্যদলে কাজ করি। কিন্তু এই নাটকে ঢাকার প্রথিতযশা নাটকের দলগুলো একত্রে কাজ করছে। থিয়েটার অঙ্গনের জন্য এটি অন্য রকম ঘটনা। এটা দারুণ এক অভিজ্ঞতা। আমি ভাবতাম, আমাদের অনেক আগল ভাঙা উচিত। ইনামুল হকের প্রয়াণদিবসকে উপলক্ষ করে আমরা এক হচ্ছি। আমরা সবাই সবার সঙ্গে মিশে এক হই।’

একাত্তর ও একজন নাট্যকার নাটকের সঙ্গে যুক্ত হয়েছেন নাগরিক নাট্য সম্প্রদায়ের কর্মী, অভিনেতা রওনক হাসান। তিনি বলেন, ‘ইনামুল স্যারকে ভীষণ শ্রদ্ধা করি। শ্রদ্ধার জায়গা থেকে বন্ধু হৃদি হকের আমন্ত্রণে এ নাটকে যুক্ত হয়েছি। এমন একটা উদ্যোগে যুক্ত হতে পেরে সম্মানিত বোধ করছি। আমরা অগ্রজদের সম্মান দেব—এভাবেই প্রজন্ম থেকে প্রজন্ম আমাদের সংস্কৃতিকে ধারণ করবে।’

‘একাত্তর ও একজন নাট্যকার’ নাটকে ইনামুল হকের লেখা মুক্তিযুদ্ধের তিন নাটকের খণ্ডবিশেষ তুলে ধরা হয়েছে। কোন ভাবনা থেকে এমন উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে—এমন প্রশ্নের জবাবে হৃদি হক বলেন, ‘নাট্যকারেরা আড়ালে থাকেন বলে আমরা বুঝে উঠতে পারি না, ওই নাটকটা কার লেখা। কিন্তু সত্তর, আশি ও নব্বইয়ের দশকে অনেক ভালো লাগার নাটক লিখেছেন বাবা। তার চেয়েও বড় হলো, তিনি ইতিহাসের সঙ্গে জড়িয়ে আছেন। বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার পর বাংলাদেশ টেলিভিশনে প্রচারিত প্রথম নাটকের তিনি নাট্যকার। বাংলাদেশে একুশে ফেব্রুয়ারি নিয়ে লেখা প্রথম নাটকের নাট্যকার তিনি।’

আজ বিকেল থেকে শুরু হওয়া এ আয়োজনে নাটকের পাশাপাশি কথা, আবৃত্তি ও লেখায় তুলে আনা হবে ইনামুল হকের বর্ণাঢ্য জীবন। তাঁকে ঘিরে স্মৃতিচারণা করবেন দীর্ঘদিনের সহকর্মী, বিভিন্ন নাট্যদলের কর্মী–কলাকুশলীরা। আজাদ আবুল কালামের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে ইনামুল হককে নিয়ে স্মৃতিচারণা করবেন সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ, রামেন্দু মজুমদার, আতাউর রহমান, মামুনুর রশীদ, গোলাম কুদ্দুছ, সারা যাকের, রতন সিদ্দিকী ও শিল্পকলা একাডেমির মহাপরিচালক লিয়াকত আলী লাকী।

গতকাল রাতে রামেন্দু মজুমদার বলেন, ‘ইনামুল হক অত্যন্ত ভদ্র, প্রচারবিমুখ ও নিভৃতচারী মানুষ ছিলেন। নাটক লিখতেন, অভিনয় করতেন, বুয়েটে পড়িয়েছেন। শিক্ষার্থীদের মধ্যে তাঁর প্রভাব ছিল। সংস্কৃতির চেতনা তিনি সবার মধ্যে ছড়িয়ে দিতে পেরেছিলেন। তাঁর লেখায় ও অভিনয়ের মধ্যে তিনি বেঁচে থাকবেন।’

ইনামুল হকের জন্য আগল ভাঙলেন শিল্পীরা

আজ বিকেল সাড়ে পাঁচটায় নাট্যশালার লবিতে বাঁশির সুরে শুরু হবে ইনামুল হক স্মরণ অনুষ্ঠান। পরে আবৃত্তি ও গান পরিবেশন করবেন শিল্পীরা। সন্ধ্যা ছয়টায় ধৃতি নৃত্যালয়ের পরিবেশনার মধ্য দিয়ে মূল মঞ্চে আলো জ্বলবে। এরপর দেখানো হবে ইনামুল হককে নিয়ে নির্মিত তথ্যচিত্র।

শুধু অভিনয়ে নয়, আয়োজনেও সংগঠনগুলো একযোগে কাজ করেছে। অনুষ্ঠানের সহ-আযোজক বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমি, বাংলাদেশ গ্রুপ থিয়েটার ফেডারেশন, শিল্পী সংঘ, ডিরেক্টরস গিল্ড, নাট্যকার সংঘ ও সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোট।

মকফুল হোসেন

ঢাকা

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.