আমি কার সঙ্গে প্রেম করব, তা একান্তই আমার ব্যক্তিগত ব্যাপার

0
57
নাজিফা তুষি
তিন সপ্তাহ আগে দেশের প্রেক্ষাগৃহে মুক্তি পেয়েছে মেজবাউর রহমান সুমন পরিচালিত চলচ্চিত্র ‘হাওয়া’। মুক্তির পর থেকেই ছবিটি নিয়ে দর্শকের রয়েছে বাড়তি আগ্রহ। ছবির নারী চরিত্র গুলতির ভূমিকায় অভিনয় করে প্রশংসিত নাজিফা তুষি। ছবি ও অন্যান্য বিষয়ে কথা বলেছেন তিনি
‘হাওয়া’ ছবিতে গুলতি চরিত্রে অভিনয় করেছেন নাজিফা তুষি

‘হাওয়া’ ছবিতে গুলতি চরিত্রে অভিনয় করেছেন নাজিফা তুষি

প্রশ্নঃ নাকি ‘সাদা সাদা কালা কালা’ গানটি আগেই আলোচিত হওয়ার কারণে প্রেক্ষাগৃহে দর্শকের এই জোয়ার?

শুধুই গান দিয়ে দর্শক ধরে রাখা সম্ভব নয়। স্বীকার করছি, সিনেমায় গানটির প্রভাব আছে। সিনেমা মুক্তির আগে পোস্টার, গান, টিজার—যা যা প্রকাশিত হয়েছে, দর্শকেরা সব কটিরই প্রশংসা করেছেন। গানটা যে এভাবে ভাইরাল হবে, সেটা ভাবিনি। তবে শুধুই গান দিয়ে সিনেমা আলোচনায় রাখা সম্ভব নয়। গল্প ভালো না হলে দু-চার দিন চলত। কিন্তু এখনো ছবিটি নিয়ে হইচই চলছে। গল্প, মেকিং, শিল্পীদের অভিনয় ভালো না হলে চলত না। মানে কনটেন্টটাও দর্শক পছন্দ করেছেন।

প্রশ্নঃ গুলতি চরিত্রের সঙ্গে মিশে যেতে বেগ পেতে হয়নি?

এই চরিত্র আমার জন্য সহজ ছিল না। শুটিংয়ের আগে তাই এক বছর আমাকে গ্রুমিং করতে হয়েছে। ছয় মাস অনুশীলন করেছি। শুধু চিত্রনাট্য পড়া নয়, আমাকে চরিত্র হয়ে ওঠার কাজ করতে হয়েছে। ছয় মাস তুষি থেকে বেরিয়ে গুলতির মতো চলতে চেয়েছি। বেদেপল্লিতে যাওয়া, শহুরে জীবন থেকে বিচ্ছিন্ন হওয়া, শাড়ি পরে থাকাসহ চরিত্রের জন্য সবই করেছি। শুধু আমি নই, আমার টিমের সবাই এভাবে জীবন যাপন করেছেন। খাটে ঘুমাতাম না, বিষণ্ন থাকার চেষ্টা করতাম। চরিত্র হয়ে ওঠার জন্য টিম আমাকে যা যা বলেছে, সবই করেছি। আমি ভেবেছি, এই কষ্ট একসময় আমার সম্পদ হবে। কাজটি করতে গিয়ে আমি একজন অভিনেত্রী হওয়ার রাস্তা দেখেছি।

হাওয়ায় গুলতি নাজিফা তুষি

হাওয়ায় গুলতি নাজিফা তুষি

প্রশ্নঃ শুটিংয়ের দিনগুলো?

শুটিংয়ের আগে আমাদের প্রস্তুতি অনেক ভালো ছিল বলে কাজটা সহজ ছিল। পরিচালক আমাদের বলেছেন, আমরা শুটিং করতে যাচ্ছি না। আমরা শুধু গল্পের চরিত্রের জীবন যাপন করতে যাচ্ছি। ক্যামেরা আমাদের ফলো করবে। গুলতি, চান মাঝি, ইব্রাহিমরা সবাই চরিত্রের মধ্যে থেকেছেন দীর্ঘদিন। শুটিংয়ের দিনগুলোতে আমরা অফ স্ক্রিনেও চরিত্রের মধ্যে থাকতাম। তবে শুটিংয়ের সময় সমুদ্রে প্রাকৃতিক দুর্যোগের কারণে আমাদের ওপর দিয়ে অনেক বিপদও গেছে।

প্রশ্নঃ দর্শকেরা আপনার অভিনয়ের কোন দিকটা পছন্দ করেছেন?

সবাই বলেন শেষের দৃশ্যটা। যখন গুলতি সাপ থেকে মানুষের রূপ ধারণ করে। পাশাপাশি অ্যাকশন দৃশ্যও অনেকের কাছে ভালো লেগেছে। গুলতির মধ্যে একজন তেজি নারীর রূপ ছিল। সেই দিকগুলোও অনেকের ভালো লেগেছে।

‘হাওয়া’ চলচ্চিত্রের দৃশ্যে নাজিফা তুষি

‘হাওয়া’ চলচ্চিত্রের দৃশ্যে নাজিফা তুষি
ছবি : সংগৃহীত

প্রশ্নঃ ‘আইসক্রিম’ ছবির পর অনেক বছরে চলে গেছে। এত দিন পর এই ছবিতে কাজের আগ্রহ হলো কেন?

২০১৬ সালে ‘আইসক্রিম’ মুক্তির পর ভালো স্ক্রিপ্ট, ভালো চরিত্র ও ভালো টিমের সঙ্গে কাজ করার জন্য অপেক্ষা করছিলাম। এই সময়ে আবার নিজের অভিনয়ের উন্নতির জন্যও কাজ করেছি। সবচেয়ে বড় কথা, আমি যে দীর্ঘ সময় অপেক্ষা করেছি, তার ফল আমি পেয়েছি। উদ্দেশ্য সৎ থাকলে ভালো ফল পাওয়া যায়। ‘হাওয়া’ তার প্রমাণ। আমি তাড়াহুড়া করতে চাইনি, ধীরেসুস্থে এগিয়েছি। আমি সংখ্যার চেয়ে মানে বিশ্বাস করি।

নাজিফা তুষি

নাজিফা তুষি
ইনস্টাগ্রাম

প্রশ্নঃ আপনাকে নিয়ে একেক সময় একেকজনের প্রেমের সম্পর্কের গল্প শোনা যায়। কখনো শরীফুল রাজ, এখন ‘হাওয়া’ পরিচালক সুমনের সঙ্গে…

একটা ছেলে ১০ জন মেয়ের সঙ্গে প্রেম করলে কেউ মাতামাতি করে না। অথচ একটা মেয়ের বেলায় সবাই মাতামাতি করে—এটাই আমাদের সোসাইটি। শোবিজের মেয়ে হলে তো আরও বেশি। এমন কোনো অভিনেত্রী আছেন, যাঁকে নিয়ে প্রেমের গুঞ্জন হয়নি, হচ্ছে না? আমি কার সঙ্গে প্রেম করি, কার সঙ্গে দেখা যায়, এই ধরনের গুঞ্জন থাকবেই—এসব মেনে নিয়েই কাজ করতে হবে। আমি কার সঙ্গে প্রেম করব, তা একান্তই আমার ব্যক্তিগত ব্যাপার। মানুষও এ ধরনের বিষয়ে গুজব ছড়িয়ে আনন্দ পায়। এটা অনেকটাই কালচারে পরিণত হয়েছে। বিয়ের পর ছেলে–মেয়ের বয়সের ব্যবধান, কার বিয়ের আগে বাচ্চা হলো—এসব নিয়েও আলোচনা করতে, লিখতে কিছু মানুষ আনন্দ পান, মজা পান। যারা এসব নিয়ে মেতে থাকতে চায়, থাকুক, আমরা আমাদের মতো কাজ করতে থাকি।

শফিক আল মামুন

ঢাকা

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.