আমরা দুজন দুজনকে খুব ভালো বুঝি’

0
385
কার্তিক আরিয়ান ও অনন্যা পাণ্ডে। ছবি: ইনস্টাগ্রাম থেকে নেওয়া

প্রথমে বলিউড তারকা সারা আলী খান, তারপর অনন্যা পাণ্ডে—দুজনই ভারতের টিভি চ্যানেলের অনুষ্ঠানে এসে জানিয়েছেন, কার্তিক আরিয়ান তাঁদের ‘ক্রাশ’। প্রথমে কার্তিক আরিয়ান প্রেম করেছেন সারা আলী খানের সঙ্গে। সারা আলী খানের ভাই ইব্রাহীম আলী খানের সঙ্গেও নাকি ভালো সম্পর্ক গড়েছিলেন। প্রেম থাকা অবস্থায় ইমতিয়াজ আলী পরিচালিত ‘লাভ আজকাল’ ছবির সিক্যুয়েলে জুটি বেঁধে অভিনয় করেছেন সারা আর কার্তিক। এরপর শোনা গেছে, সেই প্রেম ভেঙে খান খান। এখন কার্তিক আরিয়ান প্রেম করছেন আরেক বলিউড তারকা অনন্যা পাণ্ডের সঙ্গে।

৬ ডিসেম্বর মুক্তি পাবে কার্তিক আরিয়ান, অনন্যা পাণ্ডে ও ভূমি পেডনেকার অভিনীত ‘পতি পত্নী ঔর ও’ ছবিটি। এই ছবির গান ‘ধীমে ধীমে’ ১০ নভেম্বর মুক্তির পর ‘হিট’। ইতিমধ্যে ইউটিউবে টি-সিরিজের ব্যানারে মুক্তি পাওয়া গানটি দেখা হয়েছে ২ কোটির বেশিবার। আর ছবি মুক্তিকে সামনে রেখে অনন্যা পাণ্ডে ফিল্মফেয়ারকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে বললেন, তাঁর আর কার্তিক আরিয়ানের বোঝাপড়া খুবই ভালো। তাঁরা দুজন দুজনকে ভালো বোঝেন।

অনন্যা পাণ্ডে। ছবি: ইনস্টাগ্রাম থেকে নেওয়া

অনন্যা পাণ্ডে জানান, মুম্বাইয়ের একটি ক্লাবে ‘ধীমে ধীমে’ গানের শুটিং হয়েছে। অনন্যা পাণ্ডে বলেন, ‘এই গানে প্রচুর এনার্জির প্রয়োজন ছিল। আর কার্তিক আরিয়ান খুবই এনার্জিটিক। ওর সঙ্গে ফ্রেমে তাল মেলাতে এমনিতেই আমাদের এনার্জির লেভেল উঁচুতে তুলতে হতো। ওর কোনো ক্লান্তি নেই। সব সময় হাসছে, মজা করছে। ও এই ছবির দলের সবচেয়ে মজার মানুষ। তা ছাড়া কার্তিক খুবই আত্মত্যাগী মানুষ। ও সবার খেয়াল রাখে। আমরা দুজন দুজনকে খুবই ভালো বুঝি।’

অনন্যা জানান, যদি তিনি কোনো ভুল করতেন, তাহলে কার্তিক আরিয়ান তাঁকে তা শুধরে দিয়েছেন। আর কার্তিক আরিয়ানের ক্ষেত্রেও তাই। তাঁরা দুজনে নাকি খুব ভালো বন্ধু।

অনন্যা পাণ্ডে। ছবি: ইনস্টাগ্রাম থেকে নেওয়া

‘স্টুডেন্ট অব দ্য ইয়ার’ দিয়ে বলিউডে যাত্রা শুরু অনন্যা পাণ্ডে। তিনি আরও জানান, এই ছবিতে তাঁর চরিত্রের বয়স, গভীরতা বেশি। ‘পতি পত্নী ঔর ও’ ছবির ‘তপস্যা’ নারীবাদী আর স্বাধীন। শক্তিশালী। এই তপস্যা চরিত্রটি তাঁর কমফোর্ট জোনের বাইরে। এমনকি তাঁর তৃতীয় ছবি ‘খালি পিলি’তে তাঁর চরিত্রটি তপস্যার মতো চ্যালেঞ্জিং নয়।

‘পতি পত্নী ঔর ও’ ছবির শুটিংয়ের একটা বড় অংশের শুটিং হয়েছে লক্ষ্ণৌতে। কেমন ছিল শুটিংয়ের দিনগুলো? অনন্যা পাণ্ডে বলেন, ‘ওহ, দারুণ। ওখানকার খাবারের কথা আমার মনে, জিভে লেগে থাকবে। রোববার আমার “চিট ডে”, আমি সবকিছু খেতে পারতাম। আমি সারা এলাকা ঘুরে ঘুরে কাবাব, গুলাব জামুন আর রসমালাই খেয়েছি।’

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.