আবরার হত্যায় অনিকের স্বীকারোক্তি

0
411
আসামি অনিক সরকারের সঙ্গে ইফতি মোশাররফ (ডানে)।

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) ছাত্র আবরার ফাহাদ হত্যা মামলায় ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন আসামি মো. অনিক সরকার।

ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিবি) আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে আজ শনিবার ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিম আদালত এই আসামির জবানবন্দি রেকর্ড করেন। পরে অনিক সরকারকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন আদালত।

এর আগে এই মামলায় গত বৃহস্পতিবার স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন ইফতি মোশাররফ ওরফে সকাল। গতকাল স্বীকারোক্তি দেন মেফতাহুল ইসলাম।

পুলিশ ও আদালত সূত্র বলছে, অনিক আজ দেওয়া জবানবন্দিতে আবরার ফাহাদকে ক্রিকেটের স্টাম্প দিয়ে বেধড়ক পিটিয়ে গুরুতর জখম করার কথা আদালতে স্বীকার করেছেন।

৬ অক্টোবর রাত ৩টার দিকে শেরে বাংলা হল থেকে তড়িৎ ও ইলেকট্রনিক প্রকৌশল (ইইই) বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদের মরদেহ উদ্ধার করা হয়। ওই রাতে হলের ২০১১ নম্বর কক্ষে আবরারকে পিটিয়ে হত্যা করেন বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের কয়েকজন নেতা। হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় ১৯ জনকে আসামি করে পরের দিন সন্ধ্যার পর চকবাজার থানায় একটি হত্যা মামলা করা হয়। নিহত আবরারের বাবা বরকত উল্লাহ্ বাদী হয়ে মামলাটি করেন।

আবরার হত্যার ঘটনায় এখন পর্যন্ত ১৯ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। গতকাল গ্রেপ্তার হওয়া আসামি মাজেদুল ইসলামকে পাঁচ দিন রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করার অনুমতি দিয়েছেন আদালত। পুলিশের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিম আদালত আজ এই আদেশ দেন।

পুলিশ ও আদালত সূত্র বলছে, বুয়েটের আবরার ফাহাদ হত্যাকাণ্ডের অন্যতম প্রধান আসামি হলেন অনিক সরকার। সেদিন একাধিকবার আবরারকে পিটিয়েছিলেন তিনি।

এদিকে, আবরার ফাহাদ হত্যা মামলায় গ্রেপ্তার মাজেদুল ইসলামকে পাঁচ দিন রিমান্ডে নেওয়ার অনুমতি দেন আদালত। তাঁকে গতকাল শুক্রবার গ্রেপ্তার করা হয়।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে