অভিযুক্ত ব্যক্তির বুকে হাঁটু চেপে ধরল মার্কিন পুলিশ, ফিরল ফ্লয়েডের স্মৃতি

0
68
অভিযুক্ত ব্যক্তির বুকে হাঁটু চেপে ধরল মার্কিন পুলিশ

তবে পুলিশের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, একটি দোকানের দিকে পাথর ছুড়ছিলেন ওই অভিযুক্ত ব্যক্তি। এরপর ধরতে গেলে পুলিশকে ধাক্কা দিয়ে ফেলে দেন তিনি। তারপর তিনি পালিয়ে যেতে চেষ্টা করেন। তখন তাঁকে ধরার জন্য বাধ্য হয়েই হাঁটু গেড়ে মারধর করতে হয়েছে।

স্থানীয় হাসপাতালে ওই ব্যক্তিকে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। তিনি এখন সুস্থ আছেন। তাঁর বিরুদ্ধে বেশ কিছু ধারায় মামলা করা হয়েছে। তিন পুলিশের মধ্যে দুজন ক্রফোর্ড কাউন্টির আর একজন মালবেরি পুলিশ বিভাগের।

ক্রফোর্ড কাউন্টি শেরিফের অফিস রোববার ফেসবুকে এক বার্তায় বলেছে, ক্রফোর্ড কাউন্টির জড়িত দুই পুলিশ সদস্যের বিরুদ্ধে আরকানসাস অঙ্গরাজ্যের পুলিশকে ঘটনা তদন্তের জন্য অনুরোধ করা হয়েছে। তদন্তের প্রতিবেদন না আসা পর্যন্ত পুলিশ সদস্যদের বরখাস্ত করা হয়েছে।

মালবেরির মেয়র গ্যারি ব্যাক্সটার বলেছেন, এক পুলিশের সদস্যের বিরুদ্ধে আরকানসাস পুলিশ তদন্ত করছে।

আরকানসাসের গভর্নর আসা হাচিনসন টুইট করে বলেছেন, ‘পুরো ঘটনা নিয়ে পুলিশ কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা হয়েছে। এ ঘটনার যথাযথ তদন্ত করা হবে।’ জাল নোট ব্যবহারের অভিযোগে টেক্সাস অঙ্গরাজ্যের হিউস্টনের বাসিন্দা জর্জ ফ্লয়েডকে ২০২০ সালের ২৫ মে আটক করে মিনেসোটা অঙ্গরাজ্যের মিনিয়াপোলিস শহরের পুলিশ।

আটকের পর ফ্লয়েডের ঘাড় হাঁটু দিয়ে সড়কে চেপে ধরেন ডেরেক চৌভিন। এ সময় ফ্লয়েড বলতে থাকেন, ‘দয়া করুন, আমি নিশ্বাস নিতে পারছি না। আমাকে মারবেন না।’ এরপরও ওই পুলিশ সদস্য তাঁকে ছাড়েননি। সে অবস্থাতেই মাটিতে চেপে রেখেছিলেন জর্জকে।

কিছুক্ষণের মধ্যে তিনি মারা যান। এক পথচারীও ওই সময় ফ্লয়েডকে ছেড়ে দিতে পুলিশকে অনুরোধ করেন। পরে অ্যাম্বুলেন্সে করে ফ্লয়েডকে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে চিকিৎসক তাঁকে মৃত ঘোষণা করেন। জর্জ ফ্লয়েড মিনিয়াপোলিস শহরের একটি রেস্তোরাঁয় নিরাপত্তাকর্মী হিসেবে কাজ করতেন। মর্মান্তিক সেই ঘটনার ভিডিও ভাইরাল হয় সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে। গত রোববার সেই মর্মান্তিক ঘটনার স্মৃতি ফিরে এল আমেরিকায়।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.